আবারও মুখ থুবড়ে পড়ার আশঙ্কা সমন্বিত রুট চালুর প্রকল্প

0
186

ঢাকার রাস্তায় কোম্পানি ভিত্তিক সমন্বিত রুট চালুর পরিকল্পনায় চরম সমন্বয়হীনতা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক যেভাবে চেয়েছেন সেই কাজ এগিয়ে নিতে একদিকে ঢিমে-তালে কাজ চলছে উত্তর ও দক্ষিণে, অন্যদিকে একই কাজ ভিন্নভাবে করতে এগিয়ে চলেছে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ। বিশেষজ্ঞদের আশংকা, এতে আবারো মুখ থুবড়ে পড়তে পারে এই উদ্যোগ।

যাত্রী ধরতে বাসগুলোর রেষারেষি ঢাকার রাস্তায় নিত্যদিনের ঘটনা। এই সংকট থেকে মুক্তি পেতে উদ্যোগ নিয়েছিলেন প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক। সেই খবর সবার জানা, কিন্তু দু’বছর আগের উদ্যোগে নেই দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি।

কোম্পানিভিত্তিক সমন্বিত বাস পরিচালনার এই উদ্যোগে বাস চালুর কথা সাড়ে ৪ হাজার। কোম্পানি হবে ৬টি এবং রুট হবে ২২টি। ৬ রুটে নামবে ৬ রংয়ের বাস। আর মালিকদের মধ্যে বাস অনুপাতে ভাগ হবে লাভের অংশ। এতে কমবে বাসে বাসে রেষারেষি। দু’বছর পর সেই উদ্যোগের বাস্তব অবস্থা চোখে পড়ছে না।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আরিফুর রহমান বলেন, এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে উত্তর এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এ কাজ বাস্তবায়নে এগিয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়েও একাধিক বৈঠক হয়েছে। আশা করছি খুব শীঘ্রই বিষয়টি বাস্তবায়িত হবে।

তারপরও উদ্যোগ যেখানে অনেকটাই এগিয়েছে সেখানে অন্য খবরে বিধিবাম। একই সমস্যার একই রকম সমাধানে আলাদাভাবে উদ্যোগ নিয়েছে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ- ডিটিসিএ।

ডিটিসিএ’র ভারপ্রাপ্ত সচিব (ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ার) আনিসুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে আমরা একটি পাইলট প্রকল্প হাতে নিয়েছি। আপাতত কুড়িল থেকে প্রগতি সরণী হয়ে সায়দাবাদ পর্যন্ত এবং পরবর্তীতে সমস্ত ঢাকাতেই এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন পরিকল্পনায় এমন সমন্বয়হীনতার তৈরি হয়েছে দুটি উদ্যোগ। আর এই সংঘাতে ভেস্তে যেতে পারে মূল উদ্দেশ্য।

পরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. সামছুল হক বলেন, এখন একই সঙ্গে তিনটি উদ্যোগ চলছে। এটাও একটা সমন্বয়হীনতার বহিঃপ্রকাশ।

আরেক পরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. সালেহ উদ্দীন বলেন, সময় নষ্ট না করে পুরো ঢাকা জুড়েই এ প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু করা দরকার।

তবে ডিটিসিএ’র দাবি, এক্ষেত্রে নেই কোন সমন্বয়হীনতার। তবে সেটি কীভাবে তা জানাতে পারেননি আনিসুর রহমান। তিনি বলেন, এ পাইলট প্রকল্প শুরুর পর আরও ছয়টি রুটে বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে।

এ অবস্থায় পরিবহন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দ্রুত এই সংঘাতময় পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসা দরকার।

দুই বাসের চাপায় রাজীবের ঝুলে থাকা হাতের কথা সবাই মনে আছে সবারই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যে দেশ দুই বাসের রেষারেষিতে পিষ্ট হয় মানুষের জীবন। কোম্পানিভিত্তিক বাস চালু হলে দীর্ঘদিনের এ সমস্যার সমাধান হতে পারে।  সূত্র : সময় টিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here