ইভিএমের বিরুদ্ধে আ.লীগের শরিক ও বিরোধী জোট একাট্টা

0
164

বিএনপি জোট ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ জোটের শরিকরা জাতীয় নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারে আপত্তি জানিয়েছে। জাতীয় পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ও সাম্যবাদী দল এ নিয়ে নিজেদের অবস্থানও ব্যাখ্যা করেছে। যুক্তফ্রন্টও ইভিএমের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। এছাড়া গত বছর নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে অংশীজনদের সংলাপে ইভিএম ব্যবহার না করার ব্যাপারে ব্যাপকহারে সুপারিশ এসেছে। ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল সংলাপে অংশ নিয়ে বিএনপিসহ ১২টি দল ইভিএম ব্যবহারের বিপক্ষে মত দিয়েছিল।

৩০ আগস্ট একটি অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আওয়ামী লীগ এখন জনগণের ওপর আস্থা হারিয়ে যন্ত্রের ওপর ভর করছে। বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে বিএনপির নেতারা ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেছেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ যে রাষ্ট্রীয় বাহিনীর মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে তাদেরও বিশ্বাস করতে পারছে না।

১ সেপ্টেম্বর শনিবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেন, ইভিএম নিয়ে জনমনে অনেক সন্দেহ রয়েছে। আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া এটা চাপিয়ে দেয়া ঠিক হবে না। ১৪ দলের অন্যতম শরিক ওয়ার্কার্স পার্টি শনিবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ইসির ইভিএম উদ্যোগে নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্রই কার্যত শক্তিশালী হবে। কমিশন সম্প্রতি অনুষ্ঠিত সিটি নির্বাচনে মাত্র কয়েকটি কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট নিয়েছে। এতেই এটা স্পষ্ট যে, এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন নিজেই এখনো প্রস্তুত নয়। জনগণও সেভাবে প্রস্তুত নয়।

১৪ দলের আরেক শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের (একাংশ) সাধারণ সম্পাদক শরীফ নুরুল আম্বিয়া গণমাধ্যমকে বলেছেন, ইভিএম ব্যবহারে আমাদের আপত্তি নেই। তবে কারো আপত্তি থাকলে সেটা বিবেচনা করা উচিত। ১৪ দলের আরেক শরিক সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া গণমাধ্যমকে বলেছেন, তাড়াহুড়ো করে ইভিএম এর ব্যবহার কতটুকু সঠিক হবে? এটা নিয়ে ভেবেচিন্তে অগ্রসর হওয়া উচিত। জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার এমপি গণমাধ্যমকে বলেন, সিটি নির্বাচনগুলোতে ইভিএম পরীক্ষামূলকভাবে চালুর পর জাতীয় নির্বাচনেও যদি নির্বাচন কমিশন এর ব্যবহার করতে চায়, করবে।

গণতন্ত্রী পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরুর রহমান সেলিম গণমাধ্যমকে বলেন, ইভিএম নিয়ে ইসি যে সিদ্ধান্ত নেবে, আমরা তার পক্ষে। নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার না করার জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তফ্রন্ট নেতারা। তারা বলেন, নির্বাচন কমিশন ইভিএম কেনার ব্যাপারে তাড়াহুড়ো শুরু করেছে, এতে জনমনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে। যুক্তফ্রন্ট নেতারা বলেন, ভারতে বিরোধী দল ইভিএমে ভোট দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। আমেরিকা, হল্যান্ডসহ পৃথিবীর বহু দেশে ইভিএম ব্যবহার বাতিল করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here