ইলিশ মাছের সরবরাহ বাড়াতে কিছুটা কমেছে দাম

0
227

রাজধানীর বাজারগুলোতে ইলিশ মাছের সরবরাহ বাড়াতে কিছুটা কমেছে দাম।বৃহস্পতিবার মাছের বাজারগুলোতে ছিল উপচেপড়া ভিড়। ভোক্তাদের ইলিশ মাছ চাই-ই চাই। অপেক্ষাকৃত ছোট সাইজের (৫০০-৬০০ গ্রাম) দাম কম হওয়ায় ক্রেতাদের চোখ ছিল এ সব মাছের দিকে। সাধ্যমতো বেশি দাম দিয়ে আবার বড় মাছও কিনতে দেখা গেছে ভোক্তাদের। শীতের সবজির দাম একটু চড়া। এছাড়া চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি ও আটার মতো নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। কমেছে পেঁয়াজ ও আদার দাম।

এদিকে রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে নিত্যপণ্যের দরদামের এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এদিকে, ভরা মৌসুমের একেবারে শেষের দিকে নদী ও সাগরে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ মাছ ধরা পড়ায় রাজধানীর বাজারগুলোতে মাছের সরবরাহ বেড়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। এ কারণে মাছের দাম কিছুটা কম বলেও দাবি করছেন তারা। তবে ভোক্তাদের অভিযোগ, এ বছর মাছের দাম বেশি। গতবারের তুলনায় সব ধরনের মাছের দাম দেড় থেকে দ্বিগুণ। এ কারণে সারাবছরই ভোক্তাদের বেশি দাম দিয়ে মাছ কিনতে হয়েছে। মিরপুর বাজারে ইলিশ মাছ কিনছিলেন, খালেদা বেগম। তিনি বলেন, বাজারে গত সপ্তাহের তুলনায় ইলিশ মাছের সরবরাহ বেড়েছে। কিন্তু বড় আকারের মাছের দাম খুব বেশি। প্রতিটি ৬০০-৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৬০০-৮০০ টাকায়। এককেজি সাইজের প্রতিটি ইলিশ ১ হাজার থেকে ১২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ৫০০-৬০০ গ্রাম ওজনের প্রতিটি ইলিশ ৪০০-৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে।যদিও ছোট সাইজের মাছের দাম কিছুটা কম বলে মনে হচ্ছে। তিনি জানান, ইলিশ মাছের পাশাপাশি দেশী জাতীয় অন্যান্য মাছের দাম চড়া। বিশেষ করে চিংড়ি মাছের দাম খুব বেশি। প্রতিকেজি চিংড়ি মানভেদে ৬০০-১২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া রুই, কাতলা, মৃগেল, পুঁটি, টেংরাসহ অন্যান্য মাছ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। বাংলাদেশে মাছে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলেও দাম কমছে না।
এদিকে ইলিশের আমদানি বাড়ায় কর্মব্যস্ততা বেড়েছে এখানকার শ্রমিকদের। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মাছ ট্রলার থেকে উঠানো এবং প্যাকেটজাত করা পর্যন্ত বিরতিহীন ভাবে কাজ করছে তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here