ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকসের পৃষ্ঠপোষকতায় দেশব্যাপী প্রতিভা অন্বেষণ

0
28

নতুন অ্যাথলেটের সন্ধানে নামছে বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশন। সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে অচিরেই দেশব্যাপী প্রতিভা অন্বেষণ শুরু করবে দেশের অ্যাথলেটিকসের অভিভাবক সংস্থাটি। অ্যাথলেট তৈরির জন্য বাংলাদেশকে তৃণমূল পর্যায়ে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি করতে অর্থ সহায়তা দিচ্ছে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস।

‘অ্যাথলেটিকস অলিম্পিক ডিভিডেন্ট (এওডি)’ প্রজেক্টের অধীনে ইন্টারন্যাশনাল অ্যামেচার অ্যাথলেটিক ফেডারেশন (ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস) বিভিন্ন দেশকে ডেভেলপমেন্টের জন্য আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকে। ২০২০ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৩ বছরের জন্য এই খাতে বাংলাদেশ পাবে ৪০ হাজার মার্কিন ডলার বা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৪ লাখ টাকা।

আগামী ১ অক্টেবর ২০২০ থেকে ৩০ মার্চ ২০২২ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশন ডেভেলপমেন্ট কর্মসূচির মাধ্যমে সারা দেশ থেকে প্রতিভা অন্বেষণ করবে। তারা একটি প্রজেক্ট প্রফাইল জমা দিয়েছে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকসের কাছে। সে প্রজেক্ট বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশন বাজেট পেশ করেছিল ৭৩ হাজার মার্কিন ডলার। তবে প্রাথমিকভাবে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিক ৪০ হাজার মার্কিন ডলার অনুমোদন করেছে।

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু জানিয়েছেন, ‘এই প্রজেক্টে দুটি বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস। প্রথমত ডেভেলপমেন্ট অব কোচেস টেকনিক্যাল অফিসিয়াল এবং দুই. প্রতিভা অন্বেষণ। গত বছর একটি কোচেস প্রোগ্রাম এবং একটি খেলা চালিয়ে আমরা ২৫ হাজার মার্কিন ডলার পেয়েছিলাম। সফলভাবে ওই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করায় এবার এই প্রজেক্টে ৪০ হাজার মার্কিন ডলার পাচ্ছি।’

কিভাবে প্রতিভা অন্বেষণ শুরু করবে বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশন? ‘আমরা এখনও তারিখ নির্ধারণ করিনি। আমরা একটি কমিটি গঠন করেছি। ঐ কমিটিই সিদ্ধান্ত নেবে করোনার সময়ে সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে কিভাবে প্রতিভা অন্বেষণ করা যায়। প্রথম পর্যায়ে বিভাগীয় পর্যায়ে এই প্রতিভা অন্বেষণ করব। প্রতিটি বিভাগের যে জেলাগুলো জুনিয়র টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ বেশি তাদের প্রাধান্য দেয়া হবে’- বলছিলেন অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু। সূত্র: জাগোনিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here