কফি আনানের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

0
226

গণমাধ্যম ডেস্ক: জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব ও নোবেল জয়ী কফি আনানের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (১৮ আগস্ট) পৃথক বার্তায় এ শোক জানানো হয়। এর আগে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগে শনিবার সকালে হাসপাতালে মারা যান ৮০ বছর বয়সী কফি আনান।

ঘানার এ কূটনীতিক বর্তমানে সুইজারল্যান্ডে অবস্থান করছিলেন। সেখানকার একটি হাসপাতালেই মারা যান তিনি। ১৯৯৭ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত জাতিসংঘ মহাসচিব পদে দায়িত্ব পালন করেন কফি আনান। ওই সময়ে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদানের জন্য ২০০১ সালে জাতিসংঘের সঙ্গে যৌথভাবে তিনি নোবেল পুরস্কার পান।

জাতিসংঘের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা পদে দায়িত্ব পালনের পর কফি আনান জাতিসংঘ-আরব লিগের বিশেষ দূত হিসেবে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় দায়িত্ব পালন করেন। সেখানে সংকট নিরসনে যথেষ্ট চেষ্টা চালিয়েও ফল না আসায় হতাশ হন তিনি।

সবশেষ মিয়ানমার রাখাইনে দমন-পীড়ন চালিয়ে রোহিঙ্গা সংকট তৈরি করলে দেশটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যৌথ কমিশন গঠনের মাধ্যমে এর সুষ্ঠু সমাধানের চেষ্টা চালান কফি আনান। তার নামে গঠিত দআনান কমিশনে’র সুপারিশমালা ব্যাপক প্রশংসা পায় বাংলাদেশসহ বিশ্ব সম্প্রদায়ের তরফ থেকে।

শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী কফি আনানের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় তার অবদানের কথা স্মরণ করেন । শেখ হাসিনা তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। পৃথক এক বার্তায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

কফি আনানের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। তিনি বলেন, কফি আনান বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় আজীবন কাজ করে গেছেন। মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নিধনসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সমস্যার সমধান প্রক্রিয়ায় তিনি আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছেন। ‘জাতিসংঘকে নতুনভাবে গড়ে তোলা ও মানবিক কর্মকা-ে ভূমিকার রাখার জন্য বিশ্ববাসী চিরকাল তাকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।’ স্পিকার বলেন, কফি আনানের বড় অর্জন ছিল ‘সহ-স্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা’ নির্ধারণ ও বাস্তবায়ন। তার এ উদ্যোগের ফলে বিশ্ব নতুন করে আরো এগিয়ে যায়।

এ ছাড়া শোক জানিয়েছেনে, জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া এবং চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এবং বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এক বার্তায় মির্জা ফখরুল বলেন, কফি আনান বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় একজন অগ্রণী ব্যক্তি হিসেবে কাজ করেছেন। তার মৃত্যুতে বিশ্ব একজন প্রাজ্ঞ কূটনীতিককে হারালো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here