কাশ্মীর-সংক্রান্ত বিষয়ও ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় : নয়াদিল্লী

0
188

জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ অংশ। কাশ্মীর-সংক্রান্ত বিষয়ও ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন বা ওআইসির সমালোচনার জবাব এভাবেই দিয়েছে ভারত। দেশটির পররাষ্ট্রবিষয়ক মন্ত্রণালয় গতকাল শনিবার এক বিবৃতিতে এই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে সম্প্রতি ভারতের নানা কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করেছে ওআইসি। সংস্থাটির এবারের সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। আবার ভারত থাকায় অনুপস্থিত ছিলেন পাকিস্তানের প্রতিনিধি। সভায় সুষমা স্বরাজ পাকিস্তানের নাম নেননি, কিন্তু ‘সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দেওয়া রাষ্ট্র’ বলে পাকিস্তানের দিকেই ইঙ্গিত করেছেন।

শনিবারের সভায় ওআইসি ভারতের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে একটি সিদ্ধান্ত পাস করেছে। এর প্রতিক্রিয়ায় ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, জম্মু ও কাশ্মীর তাদের অংশ এবং এ-সংক্রান্ত ঘটনা ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এই বার্তার মধ্য দিয়ে ভারত স্পষ্ট করে জানিয়ে দিল, কাশ্মীর নিয়ে অন্য কোনো সংস্থার সমালোচনা সহ্য করা হবে না এবং আমলেও নেওয়া হবে না।

এদিকে বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলার মাধ্যমে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার উত্তেজনা নিরসনে ভূমিকা রাখার জন্য ওআইসির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সুষমা স্বরাজ। গত শুক্রবার তিনি এ কথা বলেন। তবে বক্তব্যের কোথাও পাকিস্তানের নাম উচ্চারণ করেননি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমরা যদি মানবিকতাকে রক্ষা করতে চাই, তবে যে রাষ্ট্রগুলো সন্ত্রাসীদের আশ্রয় ও অর্থায়ন করছে, তাদের সেগুলো বন্ধ করতে বলতে হবে।’

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ওআইসির সভায় আমন্ত্রণ জানানোয় এবারের সভায় যোগ দেননি পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। এর বদলে কনিষ্ঠ কর্মকর্তাদের সভায় পাঠায় পাকিস্তান।

এই প্রথমবারের মতো ওআইসির সভায় সম্মানসূচক অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ পায় ভারত। বলা হচ্ছে, সুষমা স্বরাজকে যেন আমন্ত্রণ জানানো না হয়, তার জন্য চেষ্টা করেছিল পাকিস্তান। কিন্তু সেই প্রচেষ্টা কাজে দেয়নি।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় দেশটির আধা সামরিক সিআরপিএফের গাড়িবহরে আত্মঘাতী হামলায় ৪০ জনের বেশি জওয়ান নিহত হন। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদ এ হামলার দায় স্বীকার করে। এর পর থেকেই দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা ছড়ায়।

এ ঘটনার ১২ দিন পর গত মঙ্গলবার ভোরে পাকিস্তাননিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বালাকোটে বিমান হামলা চালায় ভারত। এর পরদিন দুই দেশের সেনাদের মধ্যে কাশ্মীর সীমান্তে গোলা ও গুলিবিনিময় হয়। আকাশযুদ্ধে ভারত হারায় দুটি যুদ্ধবিমান। তখনই পাকিস্তান বাহিনীর হাতে বন্দী হন ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন। পরে গত শুক্রবার রাতে অভিনন্দনকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করে পাকিস্তান।
সূত্র : প্রথম আলো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here