কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হবে আনোয়ার হোসেনের মরদেহ

0
206

‘সূর্য দীঘল বাড়ী’, ‘এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী’, ‘পুরস্কার’, ‘অন্য জীবন’, ‘লালসালু’, ‘শ্যামলছায়া’ ছবির জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া চিত্রগ্রাহক আনোয়ার হোসেন আর নেই। গতকাল শনিবার রাজধানীর একটি আবাসিক হোটেলের কক্ষ থেকে তার মরহেদ উদ্ধার করা হয়।আগামীকাল সোমবার ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আলোকচিত্রশিল্পী, সিনেমাটোগ্রাফার ও মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনকে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তার মরদেহ নেয়া হবে। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে আনোয়ার হোসেনের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। জানাজা শেষে মিরপুরে অবস্থিত শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করা হবে।ওইদিনই ফ্রান্স থেকে আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী মিরিয়াম হোসেন এবং আনোয়ার হোসেনের দুই ছেলে আকাশ হোসেন ও মেঘদূত হোসেন বাংলাদেশে আসবেন।আলোকচিত্রশিল্পী, সিনেমাটোগ্রাফার ও মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের আকস্মিক মৃত্যুতে ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ অব বাংলাদেশ এবং ফেডারেশনের অন্তর্ভুক্ত দেশের বিভিন্ন চলচ্চিত্র সংসদ গভীর শোক প্রকাশ করেছে।১৯৪৮ সালের ৬ অক্টোবর পুরান ঢাকায় আনোয়ার হোসেনের জন্ম। তিনি আরমানিটোলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় বোর্ডে তৃতীয় হয়েছিলেন। নটর ডেম থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করে ভর্তি হয়েছিলেন বুয়েটের স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগে। সেখানে ভালো ফল করেন। পরে সিনেমাটোগ্রাফি পড়তে চলে যান ভারতে। ১৯৬৭ সালে আলোকচিত্রের জীবন শুরু করেন এই কিংবদন্তি।আনোয়ার হোসেন বিয়ে করেন অভিনেত্রী ডলি আনোয়ারকে। ১৯৯১ সালে ডলি আনোয়ার আত্মহত্যা করেন। ১৯৯৫ সালে ফ্রান্সে চলে যান আনোয়ার হোসেন। ১৯৯৬ সালে ফরাসি মেয়ে মারিয়ামকে বিয়ে করেন। তিনি বেশির ভাগ সময় ফ্রান্সেই বসবাস করতেন। তবে মাঝে মাঝে বাংলাদেশে এসে সময় কাটাতেন। তার মৃত্যুতে শোবিজে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। আরটিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here