খাল উদ্ধারে কোনো ছাড় নয়: আতিক

0
37

রাজধানীর খাল উদ্ধার ও খাল থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) আতিকুল ইসলাম। উদ্ধার হওয়া জায়গায় গাছপালা, ওয়াকওয়ে এবং সম্ভব হলে সাইকেল লেন করা হবে বলেও জানান তিনি।

সোমবার (৪ জানুয়ারি) রাজধানীর ইব্রাহিমপুরে খাল থেকে অবৈধ দখল উচ্ছেদ কার্যক্রম তদারকি করেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম। এসময় সরেজমিনে ইব্রাহিমপুর খালের বিভিন্ন অংশ পরিদর্শন করেন মেয়র।

পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে আতিক বলেন, খাল উদ্ধারে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। খাল দখল করে এসব স্থাপনা একদিনে গড়ে ওঠেনি। ২০ থেকে ৩০ বছরের জঞ্জাল এগুলো। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে এগুলো অপসারণ করে শহরকে সুন্দর করা। কোনো প্রভাবশালীর প্রভাব মানা হবে না।  

‘আজ আমাদের সঙ্গে এখানকার কাউন্সিলর আছেন, আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ সব অঙ্গ সংগঠনের নেতারা আছেন। তাহলে রাজনৈতিক প্রভাব আসবে কোথা থেকে? ওয়াসার কাছ থেকে খালের দায়িত্ব হাতে পাওয়ার পরই খালের অবৈধ দখল উচ্ছেদে আমরা কাজ শুরু করেছি। ’

খাল উদ্ধার করে আশপাশের এলাকা সুন্দর করা হবে জানিয়ে আতিক বলেন, সিএস জরিপ অনুসারে অনতিবিলম্বে ঢাকা শহরের খালের সীমানা চিহ্নিত করে খালের দুই পাড়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, পুনঃখনন করে পানি ধারণের ক্ষমতা বৃদ্ধি, পাড় বাঁধাই করে সবুজায়ন, ওয়াকওয়ে (হাঁটার পথ)  এবং সম্ভব হলে সাইকেল লেন তৈরি করা হবে।

পরিদর্শনকালে ইব্রাহিমপুর বাজার খাল পাড়ের কালভার্টের দুই পাশে অবৈধভাবে খালের উপর নির্মিত একটি তিনতলা ভবনসহ কয়েকটি টিনশেড দোকান উচ্ছেদ করা হয়।

এসময় অন্যদের মধ্যে ঢাকার জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এম সাইদুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিরুল ইসলাম, ঢাকা জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, ১৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মতিউর রহমান মোল্লা, ১৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. হুমায়ুন রশীদ জনি উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: বাংলানিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here