গুম-নাগরিক জীবনের ভয়াবহ অভিশাপ’

0
167

গুম-বিশ্বব্যাপী নাগরিক জীবনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের একটি ভয়াবহ দিক। প্রতিটি মানব শিশুই স্বাভাবিক জীবন যাপনের অধিকার জাতিসংঘ সনদে স্বীকৃত। জাতিসংঘ ২০০২ সালে কাজ শুরু করে ২০০৬ সালের মাঝা-মাঝি সময়ে গুম বিরোধী আন্তর্জাতিক সনদ International Convention for Protection of all Person Against Enforced Disappearance রচনা করেন। যা ২০১০ সালের ডিসেম্বরে কার্যকর হয় এবং ৩০ আগস্ট গুম প্রতিরোধ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সে আনুযায়ী ২০১১ সাল থেকে প্রতি বছর ৩০ আগস্ট গুম হওয়া ব্যক্তিদের স্মরণ এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানোর জন্য গুম প্রতিরোধ দিবস পালিত হয়ে আসছে।

আন্তর্জতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামেন্যাস্টি ইন্টািন্যাশনালের তথ্য মতে, সিরিয়ায় ২০১১ সালে গৃহযুদ্ধ হওয়ার পর এপর্যন্ত ৮৫ হাজার মানুষ গুম হয়েছে। এদের মধ্যে বিরোধী রাজনীতিক ও মানবাধিকার কর্মী পাশাপাশি সাধারণ লোকজনও রয়েছে।

আমাদের এই প্রিয় স্বাধীন-স্বার্বসভৌম দেশেও থেমে নেই গুম যন্ত্র। মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে গত ১০ বছরে ৪৩৫ জন গুম হয়েছে। তবে কেউ কেউ বলছেন- এ সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে। মানবাধিকার সংস্থা Human Rights Support Society(HRSS) এর তথ্য মতে, শুধু ২০১৭ সালেই বাংলাদেশে ৬২ জন গুমের স্বীকার
হয়েছেন। তবে বাংলাদেশে গুমকৃতদের মধ্যে রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ছাড়াও বিভিন্ন পেশজীবী মানুষও রয়েছে।

ইতোমধ্যে যারা গুম হয়ে আবার ফিরে এসেছে তাদের অবস্থাও ভাল নয়। এখনও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি অনেকেই। অজ্ঞাতবাস থেকে ফিরে এসে অনেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। একজন বলছেন- তিনি এখন আর আগের মত কথা বলতে পারেন না। তাকে গুম করে রাখার পর আটক রাখা হয় কয়েক মাস। বারবার একই প্রশ্ন করে অপহরণকারীরা অতিষ্ঠ করে তোলে তাকে। তার চোখ ও হাত বাঁধা ছিল দীর্ঘদিন। ফিরে আসার পর তার প্রথম যে সমস্যাটি হলা সেটি হলা অনেক দিন চোখ বেঁধে রাখার কারণে তার ফটোফেরিয়া হয়েগিয়েছিল। বর্বণগুলো বড় করে দিলে পড়তে পারেন। অন্য একজন বলছেন -অজ্ঞাত স্থান থেকে বের হওয়ার পর তিনি দীর্ঘদিন ঘুমাতে পারেন না। একজন বনলন- গুম হওয়ার চেয়ে কারাগার অনেক ভাল।

গুম হওয়া ব্যক্তিদের পরিবার অধির প্রতিক্ষায় তাকিয়ে আছে কখন আসবে তাদের প্রিয় মুখ। মা তার সন্তানেরর পথ চেয়ে আছে কখন তার প্রিয় করলজাি টুকরো ফিরে এসে হৃদয়টা শীতল করে দিবে(!) স্ত্রী তার স্বামীর অপেক্ষার প্রহর গুনছে(!) সন্তান ব্যাকুল হয়ে কাঁদছে বাবার অন্বষায়(!) গুমকৃত ব্যক্তিটিও চায় স্বাভাবিক মুক্ত বাতাসে স্বাধীনভাবে বসবাস করতে(!)

তাই আসুন, গুমকৃত ব্যক্তিদের গভীর চিত্তে স্মরণ করি। তাদের পরিবারকে সমবেদনা জানাই এবং সংশ্লিষ্ট
কতৃপক্ষকে তাদের স্বাভাবিক নাগরিক জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here