ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বন্ধ করুন

0
392

গণমাধ্যম ডেস্কঃ ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে চলমান সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে ছাত্র সংগঠনটি। বুধবার একটি বিবৃতির মাধ্যমে এই আহ্বান জানায় দেশের প্রচীনতম এই ছাত্র সংগঠন।

বিবৃতির শুরুতে আওয়ামি লীগের এই ভাতৃপ্রতিম সংগঠনটি জানিয়েছে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়। এর প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশের জাতির জনক শেখ মুজিবর রহমান। শুরুতে সংগঠনটি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ নামে পরিচিত ছিলো। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সাথে সম্পৃক্ত সকল আন্দোলনেই সংগঠনটি ত্যাগ স্বীকার করেছে। ছাত্রলীগ তাদের সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে ৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ৬২ এর শিক্ষা আন্দোলন ৬৬ এর স্বা-ধীকার আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান এবং ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ১৭ হাজার ছাত্রলীগ কর্মী শহীদ হন। সংগঠনটি সবসময় জাতীয়তাবাদী, অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক এবং সার্বভৌম রাষ্ট্রের পরিচয় অর্জনের ক্ষেত্রে অগ্রগামী সৈনিকের ভূমিকা পালন করেছে।

বিবৃতিটিতে আরো বলা হয়, স্বাধীনতার পরেও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সর্বদাই সেনা সমর্থিত সরকারগুলোর বিরুদ্ধে উচ্চকণ্ঠ থেকেছে। সেই সরকারগুলো দেশের গণতান্ত্রিক পরিবেশ রুদ্ধ করে রেখেছিলো। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ দূর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে জেনারেল এরশাদকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেশে গণতন্ত্র নিয়ে আসে। ১৯৯২ সালে যুদ্ধ-অপরাধী গোলাম আজমের প্রতিকী বিচার আয়োজনের ক্ষেত্রেও ছাত্রলীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ১৯৯৬ এবং ২০০৭-০৮ সালে গণতন্ত্র ঝুঁকির মুখে পড়লে একে উদ্ধারে প্রধান ভূমিকা পালন করে ছাত্রলীগ। ২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবীতে গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলন ছাত্রলীগের অংশগ্রহণে আরো শক্তিশালী হয়।

পাকিস্তানী সামরিক জান্তাদের সময় থেকে এখন পর্যন্ত ছাত্রলীগকে সর্বদাই বন্দুকের নলের সামনে থাকতে হয়েছে বলেও জানানো হয় বিবৃতিটিতে। পাকিস্তানি জান্তাদের সময়ে তারা স্বাধীনতার কথা বলায় ছাত্রলীগ কর্মীদের অপমানিত হতে হয়েছে, হতে হয়েছে হত্যাকান্ডের শিকার। ৭৫ পরবর্তী সামরিক জান্তার সময়ে তারা গণতন্ত্রের দাবী করায় নিপীড়নের শিকার হয়েছে বলেও বিবৃতিটিতে বলা হয়েছে। তবে বিবৃতিতে হতাশার সাথে বলা হয়েছে তাদের মূল সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামি লীগ ক্ষমতায় থাকার পরেও তাদের বিপদের মধ্যে থাকতে হচ্ছে। ‘উগ্রপন্থী’ বিএনপি-জামাত জোট ছাত্রলীগকে সর্বদা আক্রমণ করে, কারণ তারা জানে ছাত্রলীগই দেশের একমাত্র শক্তি যারা ৭১ এর চেতনাকে রক্ষা করতে সক্ষম। এ কারণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রায়ই মিডিয়া ষড়যন্ত্র এং প্রোপাগান্ডার শিকার হয়।

বিবৃতিটিতে দাবী করা হয়েছে, সাম্প্রতিক সময়েও ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে গুজব ছড়িয়ে গভীর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তাই তারা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠনটিকে রক্ষার জন্য উচ্চকণ্ঠ হতে। তারা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র রুখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তাও চেয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here