জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে চিত্রনায়ক শাহীন আলম

0
41

একসময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাহিন আলমকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। কিডনি জটিলতায় শুক্রবার (৫ মার্চ) রাতে জরুরিভিত্তিকে রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়।

পরিস্থিতি একেবারে নাগালের বাইরে যাওয়ায় শনিবার ভোরেই লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয় তাকে। শারীরিক অবস্থা এখনও অপরিবর্তিত বলে জানিয়েছেন নায়কের একমাত্র ছেলে ফাহিম নূর আলম।

জানা যায়, পাঁচ বছর আগে থেকে শাহীন আলম কিডনির সমস্যায় ভুগছেন। এরমধ্যে গত সাড়ে ৪ বছর ধরে তিনি ডায়ালাইসিস করে আসছেন। গত শুক্রবার রাতে খুবই অসুস্থ হয়ে পড়েন শাহীন আলম।

ছেলে ফাহিম নূর আলম বলেন, ‘বাবা দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ। আমাদের ওরকম সামর্থ্য নেই যে, ভালো চিকিৎসা করাবো। হয়তো আজগর আলীতেই নেওয়া হতো না; যদি আত্মীয়রা সহযোগিতা না করতেন। তবে লাইফ সাপোর্টের যেরকম বিল আসছে তাতে আমরা দুই দিনেই অসহায় হয়ে পড়েছি। বাবাকে বিদেশে নেওয়া তো দূরের কথা তার অবস্থার যদি উন্নতি না হয় সামনে আর হয়তো লাইফ সাপোর্টেই রাখতে পারবো না। এর অর্থটা কী তা আপনারা জানেন। বিষয়টি নিয়ে আমরা এখন অথৈ জলে পড়েছি।’

দীর্ঘদিন ধরেই সিনেমাতে অনিয়মিত ছিলেন শাহীন আলম। হঠাৎ করে ২০১৯ সালে খবর পাওয়া যায়, তিনি গুলিস্তানে কাপড়ের ব্যবসা করে দিনাতিপাত করছেন। কিডনি রোগে আক্রান্ত শাহীনই পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি।

ফাহিম আরও বলেন, ‘অনেকেই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আবেদনের বিষয়টি বলছেন। আমরাও সেদিকে চেয়ে আছি। প্রধানমন্ত্রী তো ইতোমধ্যে অনেককেই সহযোগিতা করেছেন। সন্তান হিসেবে আমার আকুতি উনার কাছে পৌঁছে দেওয়ার আবেদন আপনাদের কাছে করছি।’

জানা যায়, করোনা মহামারি শুরুর পর দোকানও বন্ধ রাখতে হয়েছিল শাহীন আলমকে। সেই সময়ে অর্থনৈতিকভাবে আরও দুর্বল হয়ে পড়েন তিনি। চিকিৎসার ক্ষেত্রেও অনেক কালক্ষেপণ করতে হয়েছিল তাকে। অন্যদিকে, মিডিয়া থেকে দূরে থাকায় তার খোঁজ-খবরও তেমন কেউ পাননি।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৬ সালের বিএফডিসির নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পা রাখেন শাহীন আলম। তার উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে আছে- ঘাটের মাঝি, এক পলকে, গরিবের সংসার, তেজী, চাঁদাবাজ, প্রেম প্রতিশোধ, টাইগার, রাগ-অনুরাগ, দাগী সন্তান, বাঘা-বাঘিনী, আলিফ লায়লা, স্বপ্নের নায়ক, আঞ্জুমান, অজানা শত্রু, দেশদ্রোহী, প্রেম দিওয়ানা, আমার মা, পাগলা বাবুল, শক্তির লড়াই, দলপতি, পাপী সন্তান, ঢাকাইয়া মাস্তান, বিগ বস, বাবা, বাঘের বাচ্চা, বিদ্রোহী সালাউদ্দিন প্রভৃতি।

সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here