ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফোর লেন খুলে দেয়া হবে অক্টোবরে

0
155

প্রমত্ত্বা পদ্মার বুক ফুড়ে আকাশের বুকে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে একের পর এক কাঠামো। যতদূর চোখ যায়, শুধু কাজ আর কাজ। যন্ত্রের বিকট শব্দ, প্রকৌশলীদের তৎপরতা আর একের পর এক অবকাঠামো তৈরির কোনটাই যেন নজর এড়ায় না। যে গতিতে কাজ এগিয়ে চলছে তাতে দ্রুত বদলে যাচ্ছে পদ্মাপাড়।

মূল পদ্মা সেতুর আগেই খুলে দেওয়া হবে সেতুর দুই পাশে ফোর লেনের ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক। প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, আগামী বছরের জুন মাসে কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এ বছরের মধ্যে উদ্বোধন করে দেয়া সম্ভব হবে সড়কটি। ফলে আমূল পাল্টে যাবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা। স্বপ্ন দেখছেন তাই এ সড়ক ব্যবহারকারীরাও।

মূল সেতু হয়ে গেলে বাড়বে যানবাহনের চাপ। সেখানে বর্তমান ২ লেনের সড়কের পক্ষে বাড়তি এ যানবাহন সামাল দেয়া সম্ভব হবে না। তাই আগে থেকেই সড়কটিকে ৪ লেনে উন্নীত করার কাজ এগিয়ে চলছে দুর্দমনীয় গতিতে। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে মাওয়া পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার আর মাদারীপুর থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ২০ কিলোমিটারের এ সড়কটি হবে দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়ে। কোন ট্রাফিক সিগন্যাল না থাকায় নিরবিচ্ছিন্ন থাকবে গাড়ির গতি।

বাসের এক চালক জানান, ফোর লাইন হলে কোন কষ্ট হবে না। সেই সাথে কোন ব্রেক হবে না। নিরবিচ্ছিন্ন গাড়ি চলবে।

এ মহাসড়কে কাঠামো নির্মাণ করতে হচ্ছে সব মিলে ১১৬টি। ছোট বড় সেতুই থাকবে ৩১টি। থাকবে ৬টি ফ্লাইওভার, ৪টি রেলওয়ে ওভারপাস, ১৫টি আন্ডারপাস আর ৩টি ইন্টারচেঞ্জের সুবিধা। ৪ লেনের মহাসড়কের দুপাশে স্থানীয় যানবাহন চলার জন্য থাকবে ৫ মিটারের দুটি আলাদা লেন। নামে ৪ লেন হলেও সুবিধা পাওয়া যাবে তাই ৬ লেনের।

কাজ শেষ করার কথা ২০১৯ সালের জুন মাসের মধ্যে। এ লক্ষ্যে পুরো কাজ একটি প্রতিষ্ঠানকে না দিয়ে ৮ কিলোমিটার করে কাজ ভাগ করে দেয়া হয়েছে ভিন্ন ভিন্ন ঠিকাদারকে। প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সেনাবাহিনীর ২৪ ইঞ্জিনিয়ার কন্সট্রাকশন ব্রিগেড। নির্ধারিত সময়ের আগেই কাজ শেষ করার ব্যাপারে আশাবাদী সরকার।

সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, এ কাজটি শেষ হওয়ার কথা আগামী বছর জুন মাসে। ইনশাআল্লাহ আগামী অক্টোবর মাসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন।

প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৬ হাজার ২৫২ কোটি ২৯ লাখ টাকা। সূত্র:সময় টিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here