দাবি পরিশোধে আগ্রহী হচ্ছে বিমা কোম্পানি

0
203

শুরু করেছে আস্থা সংকটে থাকা বিমাখাতের চিত্র। মেয়াদোত্তীর্ণ ও দুর্ঘটনায় আহত, নিহত অথবা ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের সম্পদের বিমা দাবি দিতে শুরু করেছে বিমা কোম্পানিগুলো। ফলে বিমা করলে টাকা ফেরত পাওয়া যাবে না কিংবা বিমা দাবি নিয়ে গড়িমসি করবে; গ্রাহকের এই ভয় কাটতে শুরু করেছে। বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ আইডিআরএ সূত্রে পাওয়া বিভিন্ন তথ্য থেকে এ চিত্র উঠে এসেছে।

 সূত্র মতে, বিমা কোম্পানির নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ’র নতুন চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বেশ কিছু উদ্যোগের ফলে গ্রাহকদের দাবি পরিশোধ করতে শুরু করেছে। আইডিআরএ’র সবশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৮ সালের ১ আগস্ট থেকে চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৬ মাসে বিমা কোম্পানিগুলো ৩ হাজার ২২০ কোটি টাকার বিমা দাবি পরিশোধ করেছে।

এর মধ্যে ২৭টি জীবন বিমা কোম্পানি মোট ২ হাজার ৭৭১ কোটি ২৩ লাখ এবং ৪৩টি সাধারণ বিমা কোম্পানি তাদের গ্রাহকদের ৪৪৯ কোটি ২৫ লাখ টাকার বেশি বিমা দাবির টাকা পরিশোধ করেছে। যা বিমা খাতের ইতিহাসে নতুন মাইলফলক।

দুই ধরনের বিমা কোম্পানির মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠান জীবন বিমা করপোরেশন গ্রাহকদের ১৬৫ কোটি ৭৬ লাখ ৯২ হাজার ৪৯৯ টাকার দাবি পরিশোধ করেছে।

বাকি ২৬টি বেসরকারি কোম্পানির মধ্যে মেটলাইফ আলিকো একাই পরিশোধ করেছে ৫১৮ কোটি ৩৭ লাখ ৫৬ হাজার ৩৬৩ টাকার বিমা দাবি। ফলে দাবি পরিশোধের শীর্ষে রয়েছে কোম্পানিটি। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স। এই কোম্পানিটি ৪১৭ কোটি টাকার বেশি বিমা দাবি পরিশোধ করেছে।

এরপর যথাক্রমে ন্যাশনাল লাইফ ৩৯৬ কোটি ৯৮ লাখ ও ডেল্টা লাইফ ৩৪৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকার বেশি টাকার বিমা দাবি পূরণ করে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে রয়েছে। পঞ্চম স্থানে রয়েছে ফারইস্ট ইসলামী লাইফ। কোম্পানিটি ৩১৬ কোটি ৩৬ লাখ টাকার বেশি বিমা দাবি পরিশোধ করেছে।

এছাড়াও সন্ধানী লাইফ ১০৩ কোটি ৯২ লাখ, মেঘনা লাইফ ৯২ কোটি ৪৯ লাখ, প্রাইম ইসলামী লাইফ ৮২ কোটি ৭৬ লাখ, পদ্মা ইসলামী লাইফ ৫৬ কোটি ৫৮ লাখ, রুপালী লাইফ ৬২ কোটি টাকা, গার্ডিয়ান লাইফ ৪৫ কোটি ৭১ লাখ, হোমল্যান্ড লাইফ ৪০ কোটি ৬৫ লাখ, সানলাইফ ৩৭ কোটি ৪২ লাখ, সানফ্লাওয়ার লাইফ ৩০ কোটি ৫১ লাখ, প্রগ্রেসিভ লাইফ ৩০ কোটি ৩৮ লাখ, গোল্ডেন লাইফ ২০ কোটি ৭৫ লাখ, বায়রা লাইফ ৪ কোটি ৫৫ লাখ এবং প্রোটেক্টিভ লাইফ ১ কোটি’র কিছু বেশি টাকা দাবি পরিশোধ করেছে।

অন্যদিকে ১ কোটি টাকার কম দাবি পরিশোধ করেছে চার্টার্ড, ডায়মন্ড, যমুনা, এলআইসি, এনআরবি গ্লোবাল, স্বদেশ, সোনালী এবং ট্রাস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। সব মিলে ২৭টি বিমা কোম্পানি ২ হাজার ৭৭১ কোটি ২৩ লাখ ৫৭ হাজার ৪২০ টাকা পরিশোধ করেছে।

এদিকে সাধারণ বিমা কোম্পানিগুলোর মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠান সাধারণ বিমা করপোরেশন ১৭২ কোটি ৪৪ লাখ ৯১ হাজার ৫৭৭ টাকার বিমা দাবি পরিশোধ করেছে।

বেসরকারি কোম্পানিগুলোর মধ্যে পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স ৪১ কোটি ২২ লাখ, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স ৩৩ কোটি ৬৫ লাখ, গ্রিনডেল্টা ২৫ কোটি ৯১ লাখ, প্রগতি ২৩ কোটি ৮৯ লাখ, নিটল ১৬ কোটি ৪ লাখ, বাংলাদেশ জেনারেল ১১ কোটি ৩২ লাখ, তাকাফুল ইসলামী ১০ কোটি ৯৪ লাখ, রিলায়েন্স ১২ কোটি ৮৮ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে।

একই সময়ে গ্রাহকের ৫ থেকে ১০ কোটি টাকার কম বিমা দাবি পরিশোধ করেছে এশিয়া, প্রভাতী, ন্যাশনাল, ফিনিক্স, রূপালি এবং ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।

১ থেকে ৫ লাখ টাকার কম দাবি পরিশোধ করেছে সোনার বাংলা, প্রাইম, রিপাবলিক, এক্সপ্রেস, ইসলামী কমার্শিয়াল, এশিয়া প্যাসিফিক জেনারেল, ইস্টল্যান্ড, মেঘনা এবং বাংলাদেশ কো-অপারেটিভ, ইউনিয়ন, কন্টিনেন্টাল, ইস্টার্ন, ঢাকা, ইসলামী বাংলাদেশ, দেশ জেনারেল, বাংলাদেশ সেন্ট্রাল, সিটি জেনারেল, প্যারামাউন্ট, স্ট্যান্ডাড এবং সেনা-কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড।

আর সাধারণ বিমার ৪৩টি কোম্পানি ২০১৭ সালের ১ আগস্ট থেকে ১৯ ফেব্রয়ারি ২০১৮ পর্যন্ত ৪৪৯ কোটি ২৫ লাখ ৩ হাজার ৭৬৩ টাকার দাবি পরিশোধ করেছে।

এ বিষয়ে আইডিআরএ’র সদস্য ও বিমা দাবি নিষ্পত্তি কমিটির চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন আহমেদ বলেন, আইডিআরএ’র বর্তমান কমিটি গত বছরের এপ্রিল মাসে দায়িত্ব নেয়। এরপর বিমা খাতের ইমেজ সংকট থেকে উত্তরণে বছরব্যাপী সচেতনতামূলক কার্যক্রম, প্রচার-প্রচারণা, বিমা মেলা এবং বিমা দাবি পরিশোধের বিষয়ে একের পর উদ্যোগ নিয়েছে।

বিশেষ করে বিমা দাবি নিষ্পত্তির লক্ষ্যে নতুন করে পৃথক বিমা দাবি নিষ্পত্তি শাখা খুলেছে আইডিআরএ। এই শাখায় অভিযোগ করা মাত্রই কোম্পানি এবং গ্রাহককে নিয়ে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক করে মিউচ্যুয়াল করা হয়। ফলে অল্প সময়ের মধ্যে কোম্পানিগুলোও টাকা দিয়ে দিচ্ছে। আর গ্রাহকরাও হয়রানির শিকার কম হচ্ছেন বলে জানান বোরহান উদ্দিন আহমেদ।

– বাংলানিউজ

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here