দুর্ঘটনা এড়াতে প্রয়োজন ক্যান্টনমেন্টের মত আইন

0
288

বাংলাদেশে সবগুলা ক্যান্টনমেন্ট এর মধ্যে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট (কচুক্ষেত – সৈনিক ক্লাব) দিয়ে সবচেয়ে বেশি সিভিলিয়ান চলাচল করে।

হাজার হাজার সিভিলিয়ানদের গাড়ি, বাইক প্রতিদিন চলাচল করে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট দিয়ে। এমনকি অনেক পাবলিক বাসও চলে।

অথচ আজ অব্দি কখনও শুনিনি ক্যান্টনমেন্টের ভেতর রোড এক্সিডেন্টে কেউ মারা গেছে (সর্বোচ্চ ২/১ জন আহত হয়েছেন)। এতো চলাফেরা সত্তেও কখনও দেখিনাই কোন বাইক বাউলি দিয়েছে, হঠাৎ স্পিড বাড়িয়ে টান দিয়েছে।

কোন বাস রেস খেলা ত দূরে থাক, ঠুকাঠুকিও করতে দেখিনা। এতো গাড়ি তবুও কেউ কখনও বেপরোয়া স্পিডে চালায়না। অথচ কয়জন মিলিটারি পুলিশই (এম.পি) বা থাকে..!!

অথচ কেউ রুলস ভাঙে না ওখানে। সবাই নিজ দায়িত্বে লাল – সবুজ বাতি মেনে চলে। সবাই নির্ধারিত (৪০-৫০) গতিতে গাড়ি চালায়।

এর কারন কি জানেন??

শুধুমাত্র আইনের প্রয়োগ। আর কিচ্ছুনা। জাস্ট আইনের সঠিক প্রয়োগ।

ক্যান্টনমেন্ট এ চলাচলকারী প্রত্যেকটা বাইকার, ড্রাইভার সবাই জানে এখানে কোন ঝামেলা হলে মিলিটারি পুলিশ আমাকে ধরবেই। তারা আমাকে তাদের আইন অনুযায়ী শাস্তি দিবেই। টাকা দিয়ে তাদেরকে কেনা সম্ভব হবেনা। তাদেরকে ১০০/২০০/৫০০ দিলে তারা আমাকে ছাড়বেনা। কোন তদবিরেও কোন কাজ হবেনা।

আর এসব কারনেই ক্যান্টনমেন্টে রোড এক্সিডেন্ট একদমই হয়না। ফাকা রাস্তাতেও কোন রেস হয়না।ঠুকাঠুকি হয়না।

আর ঠিক ক্যান্টনমেন্ট এড়িয়া থেকে জাস্ট এক দেয়াল পরেই অর্থাৎ ক্যান্টনমেন্ট এর বাইরেই সব ওলটপালট। বাইরের রাস্তায় রেস খেলা হয়, মানুষ পিষে ফেলা হয়, ঠুকাঠুকি করা হয়, বাউলি দেয়া হয়, আরও কত কি…

এর কারন শুধুমাত্র আইনের প্রয়োগ না থাকা। এখানে পুলিশকে কেনা যায় হরদম। এখানে বাস ড্রাইভার আকাম করলেও তদবির করে ছুটে যায়। এখানে বেপরোয়া চালালেও পুলিশ কিছু বলেনা।
আইন থাকে ড্রাইভারদের পকেটে। এখানে চলে ঘুষের খেলা…

অথচ যদি ক্যান্টনমেন্ট এর মত এখানেও আইনের প্রয়োগ থাকতো তাহলে প্রতিদিন আমাদের কারো না কারো ভাই-বোন হারাতে হতোনা। আকাশ-বাতাস কাপানো আহাজারি শুনতে হতো না। হুইল চেয়ারকে আজীবন সঙ্গী করতে হতোনা

ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বভার পরীক্ষামূলক ভাবে ৩-৬ মাসের জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মিলিটারী পুলিশ ইউনিটকে (১৩ এম.পি.) দেয়া যেতে পারে। এতে যদি ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় কিছুটা শৃঙ্খলা ফিরে আসে…

ফেসবুক থেকে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here