নতুন আতংক রাস্তার পাশে পাওয়া মরদেহ

0
171

গুম, অপহরণের পর নতুন আতংক রাস্তার পাশে পাওয়া, মরদেহ। গত দেড় মাসে শুধু নারায়ণগঞ্জেই মিলেছে হতভাগ্য সাতজনের মরদেহ। পুলিশ পরিচয়ে বাসা থেকে নিয়ে তুলে নেয়ার অভিযোগ করছেন স্বজনরা। আর পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, এমন কোনো ঘটনা থাকলে, তদন্ত করা হবে। তবে, নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, নিজেদের জন্যই আইনশৃংখলা বাহিনীর উচিত, এমন ঘটনার বিশ্বাসযোগ্য তথ্য উপস্থাপন করা।

চলতি বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর। নারায়গঞ্জের রূপগঞ্জের পূর্বাচল আলমপুরায় একটি সেতুর নিচে মেলে, সোহাগ, শিমুল ও বাবু নামে তিন যুবকের গুলিবিদ্ধ মরদেহ। নিহতদের পরিবারের অভিযোগ ছিলো, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে বাস থেকে নামিয়ে খুন করা হয় তাদের।

সেই ঘটনার কোনো সুরাহা না হতেই, মাত্র দেড় মাসের মাথায় রোববার নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের সাতগ্রামে মহাসড়কের রাস্তার পাশে, আবারও মিললো চারজনের গুলিবিদ্ধ দেহ। তাদের মাথায়ও আগের তিনজের মতোই গুলির চিহ্ন।

নিহদের স্বজনদের অভিযোগ, শুক্রবার ভুলতা থেকে মোট পাঁচজনকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ।

রোববারই রাজধানীর দিয়াবাড়ির একটি ডোবা থেকে দুই যুবকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহতরা হলেন-কামাল হোসেন শুভ ও ইমান শেখ।
সোমবার রাতে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গ থেকে মরদেহ বুঝে নেয়ার সময় স্বজনরা জানান, ১৪ অক্টোবর থেকে নিখোঁজ ছিলেন তারা।

নিখোঁজ থাকা কিংবা পুলিশ পরিচয়ে তুলে নেয়ার অভিযোগ নিয়ে বাহিনীর কর্তারা বলছেন, সার্বিক বিষয়ে এখনো পরিষ্কার তথ্য নেই তাদের হাতে। তাদের কেউ জড়িত থাকলে, নেয়া হবে ব্যবস্থা।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মোহাম্মদ আলী শিকদারের মতে, এসব ঘটনায় পুলিশের গাঁ বাচানোর চেষ্টা ভালো লক্ষণ নয়।

সব গুম কিংবা অপহরণের পর হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত প্রয়োজন বলেও মনে করেন সেনাবাহিনীর সাবেক এই কর্মকর্তা।   চ্যানেল 24

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here