নারায়ণগঞ্জে মৃত নারীর দাফনের পর জানা গেলো করোনা, পুরো এলাকা লকডাউন

0
114

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে কোভিড-১৯-এ একজনের মৃত্যু হয়েছে। দাফনের পর নমুনা সংগ্রহের পরীক্ষা শেষে জানা গেলে তিনি কভিডে আক্রান্ত ছিলেন। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার রাতে জেলা সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে আক্রান্ত নারীর বাড়িসহ ওই এলাকার একশ’ পরিবারকে লকডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন।ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন, চ্যানেল আই

লকডাউনের বিষয়টি নিশ্চিত করে বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুক্লা সরকার জানান, পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত লকডাউন অব্যাহত থাকবে।

বৃহস্পতিবার রাত দশটা থেকেই জেলা সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইমতিয়াজের নেতৃত্বে উপজেলা প্রশাসন লকডাউনের প্রস্ততি নিতে থাকে।সময় বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শুক্লা সরকার, জেলা করোনাভাইরাস ফোকাল পারর্সন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম, বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুল কাদের, র‌্যাব-১১ সহকারী পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, বন্দর থানার ওসি ফিকুল ইসলামসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন, চ্যানেল আই

এসময় পুরো এলাকায় মাইকিং করে সবাইকে ঘরের ভেতরে থাকতে এবং বের না হতে সতর্ক করে দেয়া হয়। তবে স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছেন, ওই নারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন বলে পরিবার ও এলাকাবাসী শুরু থেকে জানলেও বিষয়টি গোপন রেখে তারা তড়িঘড়ি লাশ দাফন করে ফেলেন।

বন্দর থানার ওসি ফিকুল ইসলাম বলেন, গত ২৯ মার্চ রোববার বন্দর উপজেলার রসুলবাগ এলাকার ৪৫ বছর বয়সী এক নারী শ্বাসকষ্ট ও জ্বর নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় স্বজনরা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ওই নারীকে রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য পরামর্শ দেয়। স্বজনেরা ওই দিন ওই নারীকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে না নেওয়ার পর নারায়ণগঞ্জের বাড়িতে ফেরত নিয়ে আসে।ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন

তিনি আারো জানান, গত ৩০ মার্চ আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। কুর্মিটোলা হাসপাতালে ওই নারীর নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর এ পাঠায়। এরপর স্বজনেরা লাশ বন্দরের বাড়িতে নিয়ে আসে। এর আগে ওই নারী স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তারা স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে মনে করে দুই ছেলে ও মেয়ের জামাইসহ স্বজনরা ওই নারীকে বন্দর উপজেলার স্থানীয় কবরস্থানে সেদিনই লাশ দাফন করেন বলে জানান তিনি।

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, পরে নমুনা সংগ্রহের পর পরীক্ষা শেষে রোববার ২ মার্চ বৃহস্পতিবার করোনার পজেটিভ রিপোর্ট ধরা পড়ে। এ ঘটনায় রাতেই রসুলবাগ এলাকা লকডাউন করা হয়। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। শুক্রবার ওই নারীর পরিবার ও আশেপাশের লোকজনের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here