নির্বাচনী ইশতেহারে পলাতক যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রতিশ্রুতি দাবি

0
167

বাঙালি জাতিকে মেধাহীন করার সংঘবদ্ধ পরিকল্পনা নিয়ে বিজয়ের দুই দিনে আগে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হত্যা করে পাকিস্তানি বাহিনী। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কাজ করেছে তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনী। অনেকটা সময় পেরিয়ে এই অমানবিক হত্যাযজ্ঞের বিচার হলেও সবার রায় কার্যকর করা যায়নি আজও। শহীদ বুদ্ধিজীবীদের পরিবারের সদস্যদের চাওয়া, আসন্ন নির্বাচনে রাজনৈতিক দলগুলোর ইশতেহারে পলাতক যুদ্ধাপরাধীদের ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকরের রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি থাকুক।

বাঙালি জীবনে নিকষ কালো রাত। পরাজয় অবশ্যম্ভাবী, সেটা যখন জানা হল। জেনারেল রাও ফরমান আলীর শীতল পরিকল্পনায় হত্যা করা হল এদেশের সূর্য সন্তানদের। পোড়া মাটি নীতি বাস্তবায়িত হল পাকিস্তানীদের এদেশি দোসর বদর বাহিনীর দ্বারা। তারা চেয়েছিল, পরাজিত হলেও যেন এই জাতির যদ্দুর সম্ভব ক্ষতি করে যেতে পারে।

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেন, হিটলারের বাহিনী যেভাবে ইহুদি বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছিল সেভাবে তালিকা তৈরি করে বাঙালি বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছে।

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, একটি জাতিকে মননশীলতা, সৃজনশীলতা থেকে শূন্য করে দেয়ার চেষ্টায় এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে।

এই নৃশংস এবং পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড কেবল ঢাকাতেই সীমাবদ্ধ ছিল না, দেশের সকল বড় শহরে তালিকা করে বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনা নিয়েছিল পাকিস্তানী বাহিনী। এর নেতৃত্বে থাকা মতিউর রহমান নিজামী এবং আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসির রায় ইতোমধ্যে কার্যকর হয়েছে। এর সাথে যুক্ত আরো দুই নেতা চৌধুরী মাঈনুদ্দীন এবং আশরাফুজ্জামান খান বিদেশে বহাল তবিয়তে আছেন, তাদের বিচারের মুখোমুখি করা যায়নি এখনো।

একাত্তরের ১৪ই ডিসেম্বর যারা হারিয়েছেন স্বজন, তাদের চাওয়া আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে রাজনৈতিক দলগুলোর ইশতেহারে যুদ্ধাপরাধী এবং বুদ্ধিজীবী হত্যায় জড়িতদের ব্যাপারে সুস্পষ্ট রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি থাকবে।

শহীদ জায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আমরা দাবি করে যাব। তাদের সমস্ত সম্পদ বাজেয়াপ্ত করতে হবে।

শহীদ বুদ্ধিজীবী মুনীর চৌধুরীর সন্তান আসিফ মুনীর তন্ময় বলেন, যে রায়গুলো হয়ে গেছে সেগুলো বাস্তবায়নের পক্ষে যেন কোনো বিঘ্ন না ঘটে আমরা সেটাই চাই।

এছাড়াও, দণ্ডিতদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা সহ রাষ্ট্রীয় সুযোগ সীমিত করারও দাবি জানান শহীদ বুদ্ধিজীবীদের পরিবারের সদস্যরা।  সূএ: সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here