নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট

0
436

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঐক্যফ্রন্ট। তবে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য যে ৭ দফা দাবি তারা দিয়েছেন সেই দাবি থেকে ফিরে আসবেন না বলে জানিয়েছে তারা।

রোববার  জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন থেকে এ কথা বলেন ড. কামাল হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেনের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দলটির মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ঘোষণাপত্রে বলা হয়েছে: একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য অত্যাবশ্যকীয় লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড এর ন্যূনতম শর্ত এখনো পূরণ হয়নি। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পরও বিটিভিসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম নিয়ে ব্যাপক প্রচার চালানো হচ্ছে যা নির্বাচনী আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

তিনি বলেন, নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিরুদ্ধে সাবেক নির্বাচন কমিশনার শামসুল হুদাসহ দেশের প্রায় সকল দল ও জনগণের আপত্তি থাকা সত্ত্বেও সরকার ও নির্বাচন কমিশন ইভিএম ব্যবহারের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত বাতিল করেনি। এরকম একটা পরিস্থিতিতে একটা অংশগ্রহণমূলক গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হওয়া প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। তাই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত অত্যন্ত কঠিন৷ কিন্তু এরকম ভীষণ প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনের অংশ হিসাবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আমাদের দাবিকৃত সাত দফার বিস্তারিত বিচার বিশ্লেষণের জন্য আরো আলোচনা প্রয়োজন ছিল। সেই উদ্দেশ্যে আমরা দাবি করেছিলাম উভয়পক্ষের মধ্যে আরও কয়েকটি সংলাপ অনুষ্ঠিত হোক। তাই আমরা যৌক্তিকভাবেই চেয়েছিলাম সংলাপ শেষ না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন যেন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না করে। আমাদের দ্বিতীয় দফা সংলাপের আগেই নির্বাচন কমিশন জানায়, নির্বাচনে অংশীজন একমত হলে তফসিল পিছিয়ে দেবেন তারা। এতে সরকার আমাদের নির্বাচনের তফসিল পেছানোর আহ্বান সাড়া দেয়নি।

চ্যানেল আই

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here