নির্বাচন জালিয়াতি করার চূড়ান্ত মাস্টার প্ল্যান হচ্ছে ইভিএম: রিজভী

0
135

সন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ইভিএম ব্যবহারে সরকারের নেতৃত্বাধীন কমিশনেও ভিন্নমত থাকার পরও ইভিএম ব্যবহারে মরিয়া হয়ে উঠেছে সরকার এমন মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ইভিএম ব্যবহারে সরকারের এই বাস্তবায়নে চূড়ান্ত উদ্যোগ গ্রহণকে সুস্পষ্ট নির্বাচন জালিয়াতি করার চুড়ান্ত মাস্টার প্ল্যান।
শুক্রবার নয়াপল্টনস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, বাংলাদেশের অধিকাংশ দল, পেশাজীবী সংগঠন,সুশীল সমাজের বিরোধীতা ও সারা বিশ্ব থেকে প্রত্যাখ্যাত ও নিষিদ্ধ হওয়া এই (ইভিএম) ডিজিটাল মেশিনটি বাংলাদেশের আগামী নির্বাচনে ১০০ আসনে ব্যবহার করার অনুমোদন করেছে প্রধান নির্বাচন কমিশনার। প্রধান নির্বাচন কমিশনার স্বাধীন বিবেক দ্বারা স্বায়ত্বশাসিত নন। ভোটারবিহীন অবৈধ সরকারের বাকশালী বিবেকই তিনি নিজের মধ্যে প্রথিত করেছেন।

রিজভী বলেন, সবদিক থেকে ইভিএমের ব্যাপারে বিরোধীতা থাকার পরও সিইসিসহ কয়েকজন কমিশনারের একতরফা ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত আগামী নির্বাচন জালিয়াতি করারই চূড়ান্ত মাস্টার প্ল্যান।

তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞরা মনে করেন একটি গোপন কোড জানা থাকলেই ইভিএম ভোটিং মেশিনের গণনাপদ্ধতি সম্পূর্ণ পাল্টিয়ে ফেলা যায়। ভোটারবিহীন আওয়ামী জোটের সরকার জনগণের টাকায় জালিয়াতি করার মেশিন কিনে জালিয়াতির নির্বাচন করতে চায়।

বিএনপির এই নেতা বলেন, গত পরশু প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তিনি ভোটের জন্য রাজনীতি করেন না, জনকল্যানের জন্যই নাকি তিনি রাজনীতি করেন। আসলে তিনি ঠিকই বলেছেন, শুধু এখানে একটু সংশোধনী হবে, জনকল্যাণের স্থলে হবে আওয়ামী কল্যাণের জন্য তিনি রাজনীতি করেন। আত্মীয়-স্বজনদের অর্থবিত্তে ফুলে ফেঁপে তোলার জন্য রাজনীতি করেন। আর ভোটের জন্য যে তিনি রাজনীতি করেন না সেটির উৎকৃষ্ট প্রমাণ তিনি প্রতিদিনই রাখছেন।

তিনি আরো বলেন, জাতীয় নির্বাচন থেকে শুরু করে স্থানীয় সরকারের প্রতিটি নির্বাচনে তাঁর ভোটারদের প্রয়োজন হয়নি। ভোটারা দ-র থেকে দেখেছে ভোট ডাকাতির দৃশ্য। সত্যিকারের গণতন্ত্রে সরকার পরিচালনায় যে জনগণের ম্যান্ডেট প্রয়োজন হয় সেটা প্রধানমন্ত্রী বিশ্বাস করেন না। সেজন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী থাকতেই ভালবাসেন। তাই অনুগত প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে ইভিএম নামক ‘যাদুর বাক্স’ আমদানী করে আগামী জাতীয় নির্বাচনে ধাপ্পাবাজীর ভোটের বন্দোবস্ত করছেন। তবে এবার জনগণ সরকারের সকল মাস্টার প্ল্যান ডাস্টবিনে ফেলে দিবে। ভোট নিয়ে অনাচারের পুনরাবৃত্তি জনগণ রুখে দেবে। এবারে জনগণের শিলা-কঠিন ঐক্যে সরকারের সকল পরিকল্পনা ধুলিস্যাৎ হয়ে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here