নির্বাচন নিয়ে সরকারকে দফা দেবে বিএনপি

0
185

গণমাধ্যম ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য করতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারকে কিছু দফা দেবে বিএনপি। কিন্তু কয়টি দফা দেয়া হবে, সে বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি দলটি। তবে দফাগুলো সব চূড়ান্ত না হলেও নিরপেক্ষ নির্বাচনের শর্ত হিসেবে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দফার মধ্যে থাকবে। আর অন্যান্য দফাগুলো চূড়ান্ত করতে খুব শিগগির একটি কমিটি গঠন করবে দলটি। বিএনপির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সোমবার রাতে চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, দফাতে সরকারকে বলা হবে যে- ‌‘সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন যদি করতে চাও তাহলে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দাও’।

সূত্রটি আরো জানায়, দফাগুলো চূড়ান্ত করতে যে কমিটি গঠন করা হবে, সেই কমিটির কাজ হবে নিজেদের দফা তৈরি করে বিভিন্ন জায়গা থেকে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য দফা সংগ্রহ করা। এজন্য দলটি গণফোরাম সভাপতি ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন, বিকল্প ধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি আ স ম আবদুর রবসহ বামদল এবং দেশের সকল রাজনৈতিক দলকে বলবে চলুন আমরা এক সঙ্গে এগুলো ঠিক করি।

এছাড়া দেশের বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী এবং সাংবাদিকদেরকেও দফা দেয়ার জন্য আহ্বান জানানো হবে বলে সূত্রটি জানায়।

গত ৩ ও ৪ আগস্ট দলের ৭৮টি সাংগঠনিক জেলার নেতাদের নিয়ে ঢাকায় দুই দিনব্যাপী বৈঠক করেছে বিএনপি। ওই বৈঠকে তৃণমূলের নেতারা, জাতীয় ঐক্যের বিষয়ে জামায়াতকে বাদ দেয়াসহ বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে লংমার্চ ও মানব প্রাচীরসহ বিভিন্ন কর্মসূচি করার পরামর্শ দেন।

সূত্রটি জানায়, প্রায় আড়াই ঘণ্টাব্যাপী আজকের এই বৈঠকে জামায়াতের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে, জামায়াত বিএনপি এবং ২০ দলীয় জোটের সাথে যেভাবে আছে, সেভাবেই থাকবে।

বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ড. মঈন খান, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here