নেক কাজের আগ্রহ হলে কী করা উচিত?

0
284

নেক কাজ করার সৌভাগ্য আল্লাহপাক সবাইকে দান করেন না। নেক কাজের আগ্রহ সৃষ্টি হওয়া- এটা আল্লাহর পাঠানো ‘মেহমানা’। যার মাঝে নেক কাজের আগ্রহ সৃষ্টি হবে, তার উচিত সেই আগ্রহের আদর-যত্ন করা। অর্থাৎ যদি কারো নফল নামাজ পড়ার আগ্রহ জাগে তাহলে তার উচিত হবে অজু করে পবিত্রতা অর্জন করে নামাজ পড়ে ফেলা। কারো যদি একজন দরিদ্রকে দেখে দান করতে ইচ্ছা হয়, তাহলে তার উচিত হবে তাৎক্ষণিক কিছু দান করে দেওয়া। অনেকে ভেবে থাকেন— পরে দান করব। দেখা যায় পরে আর দান করা হয় না। এটাই হচ্ছে শয়তানের ধোঁকা। শয়তান আমাদের অনেকভাবেই ধোঁকা দিয়ে থাকে, তার মধ্যে এটাও একটা ধোঁকা।

পবিত্র কোরআনের সুরা আল ইমরানের ১৩৩ নম্বর আয়াতে আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, দৌড়ে চলো তোমাদের রবের ক্ষমার পথে এবং সেই পথে যা পৃথিবী ও আকাশের সমান প্রশস্ত জান্নাতের দিকে চলে গেছে, যা এমন সব আল্লাহভীরু লোকদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এই আয়াতের শুরুতেই বলা হয়েছে, রবের ক্ষমার দিকে দৌড়ে চলো। অনেকেই মনে করে থাকেন এখন মসজিদে আলো জ্বলছে, এখন তওবা করব? শেষ রাতে উঠে তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ে তওবা করব এবং নিজের জন্য দোয়া করব। কিন্তু দেখা যায় শেষ রাতে ওঠা হয় না, তওবাও করা হয় না। তাই যখনই কোনো ভালো কাজ করার আগ্রহ সৃষ্টি হবে, তখনই সেই কাজটি করে ফেলতে হবে।

একজন মুমিনের মাঝে যখন ভালো কাজের ইচ্ছা জাগে, তখন যেন সে সেই ইচ্ছা থেকে পিছিয়ে না পড়ে; বরং আগ্রহ নিয়ে সেই ভালো কাজটি করে ফেলে। সে জন্য আল্লাহপাক পবিত্র কোরআনের সুরা বাকারার ১৪৮ নম্বর আয়াতে ইরশাদ করেছেন, প্রত্যেকের জন্য একটি দিক আছে, সেদিকেই সে ফেরে। কাজেই তোমরা ভালোর দিকে এগিয়ে যাও। যেখানেই তোমরা থাকো না কেন, আল্লাহ তোমাদের পেয়ে যাবেন। তাঁর ক্ষমতার বাইরে কিছুই নেই।

কোরআনের এই আয়াতে যদিও আল্লাহপাক অন্য একটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন, তবু এখানে দুটি বিষয়। একটি হচ্ছে, ভালো কাজ করার জন্য তোমরা এগিয়ে যাও। আরো একটি হলো, আল্লাহর ইবাদত বা ভালো কাজ যেখানেই করা হবে সেটাই আল্লাহর কাছে পৌঁছে যাবে। কখনো কোনো ভালো কাজ করার আগ্রহ জাগলে আমাদের উচিত হবে সেই আগ্রহগুলোকে কাজে লাগানো। আল্লাহপাক আমাদের ভালো কাজ করার আগ্রহ দান করুন এবং সেই ভালো কাজগুলো করারও তাওফিক দান করুন। আমিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here