পিএসের সঙ্গে বুলবুলের শেষ কথা, তাড়াতাড়ি আস, আমার হার্টঅ্যাটাক হয়েছে

0
203

তাড়াতাড়ি বাসায় আস, আমার হার্টঅ্যাটাক হয়েছে।’ ব্যক্তিগত সহকারীর সঙ্গে হাজারও জনপ্রিয় গানের সুরস্রষ্টা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের শেষ কথা ছিল এটি। ভোর ৪টার দিকে এ কথা বলার ১০-১৫ মিনিটের মধ্যে পরপারে চলে যান বুলবুল। জনপ্রিয় এ শিল্পীর ব্যক্তিগত সহকারী রোজেন জানান, ভোর ৪টার দিকে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল মুঠোফোন থেকে তাকে ফোন করেন। বলেন, তাড়াতাড়ি বাসায় যেতে, তার হার্টঅ্যাটাক হয়েছে। রোজেনের ভাষ্য- ভোর ৪টার দিকে স্যার ফোন করে বলেন, তাড়াতাড়ি বাসায় আসো, আমার হার্টঅ্যাটাক হয়েছে। এর পর ১০-১৫ মিনিটের মধ্যে আমি স্যারের বাসায় যাই। কিন্তু গিয়ে তার কোনো পালস পাইনি।

রোজেন জানান, পরে বুলবুলকে দ্রুত রাজধানীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা তাকে সাড়ে ৫টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন। বুলবুলের সঙ্গে তার কোনো কথা বলার সুযোগ হয়নি বলে জানান রোজেন। রোজেন আরও জানান, ভোর সোয়া ৪টার দিকে বাসাতেই মৃত্যু হয় বুলবুলের।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ চক্রবর্তী জানান, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মৃত্যু হয়েছে হার্টঅ্যাটাকে। প্রয়োজনীয় পরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা এটিই নিশ্চিত হয়েছেন। হাসপাতালে আনার আগেই তিনি মারা যান। জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে হার্টের অসুখে ভুগছিলেন কিংবদন্তি সংগীত ব্যক্তিত্ব আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। গত বছরের মাঝামাঝি বুলবুলের হার্টে আটটি ব্লক ধরা পড়ে। তার শারীরিক অবস্থার কথা জানতে পেরে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নেয়ার পর বুলবুলকে ভর্তি করা হয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে। সেখানে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা বুলবুলের বাইপাস সার্জারি না করে রিং পরানোর সিদ্ধান্ত নেন। হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. অধ্যাপক আফজালুর রহমানের অধীনে বুলবুলের শরীরে দুটি স্টেন্ট (রিং) স্থাপন করা হয়। রিং পরানো শেষে সুস্থ হয়ে বাসায় ফেরেন বুলবুল। এর পর থেকে তিনি বাসাতেই বেশি সময় কাটাতেন। গানে আর তাকে দেখা যায়নি। তার জীবনযাপনেও বেশ পরিবর্তন আসে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here