পুঁজিসংকটে ঐতিহ্যবাহী জামদানিশিল্প

0
276

সৌন্দর্য, নকশা, বুনন আর ঐতিহ্যে গর্বের পণ্য দেশীয় জামদানি। ইউনেস্কোর ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজ তালিকাতেও রয়েছে জামদানি। কারুকার্য ও বাহারি নকশার ফলে আভিজাত্যের প্রতীক জামদানি। বর্তমানে জামদানি শিল্পের সঙ্গে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে ৬৮ হাজারেরও বেশি মানুষ সম্পৃক্ত। জামদানির চাহিদা থাকার পরও ভালো নেই এ শিল্পের কারিগররাও। জামদানির ব্র্যান্ডিংয়ে নেই কোনো উদ্যোগ । এই শিল্পের উদ্যোক্তাদের জন্য নেই স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদী ব্যাংক ঋণের সুবিধা। ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় তাঁতিরা ঝুঁকছেন অন্য পেশায়।

এখনো জামদানি শাড়ির কদর দেশের পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে। এটাকেই পুঁজি করে নকল জামদানিতে বাজার ভরে গেছে। দাম কম হওয়ায় ক্রেতারা নকল জামদানি কিনে প্রতারিত হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, ভারত তাদের উপ্পাদা জামদানিকে ঢাকাই জামদানি বলে বিক্রি করছে। অথচ ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় জামদানির স্বত্ত্ব কেবল বাংলাদেশেরই। কোনো দেশ জামদানি উৎপাদন কিংবা বাণিজ্যিকভাবে বিক্রি করতে চাইলে স্বত্ব দিতে হবে বাংলাদেশকে।

বাংলাদেশ জাতীয় কারুশিল্প পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট রুবী গজনবী বলেন, বাজারে নকল জামদানিতে ভরে গেছে। টাঙ্গাইলের শাড়িতে কিছু বুটিক করেই জামদানি বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া ভারত থেকে দেদারসে এ ধরনের শাড়ি আসছে। যা জামদানি বলে ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, যেখানে একটি জামদানি শাড়ির দাম হওয়ার কথা ২০ হাজার টাকা, তা বিক্রি হচ্ছে মাত্র ২ হাজার টাকায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজধানীর এক জামদানি শাড়ি বিক্রেতা বলেন, আসল-নকল জামদানির পার্থক্যতো দামেই। ৬/৭ হাজার টাকার নীচে তো কোনো জামদানিই হবে না। অথচ ২ হাজার টাকাতেও জামদানি পাওয়া যাচ্ছে।

নকল জামদানিতে বাজার ভরে যাওয়ায় হাতের তৈরি জামদানির আসল কারিগররা মার খাচ্ছেন। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী পাওয়ার লুম দিয়ে পলিস্টার সুতায় জামদানি তৈরি করছেন। এতে ঐতিহ্য হারাচ্ছে জামদানি। অথচ হাতে একটি জামদানি তৈরি করতে কয়েক মাস পর্যন্ত সময় লাগে। কারিগররা বলছেন, এ শিল্প টিকিয়ে রাখতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার অভাব রয়েছে। এছাড়া কাঁচামাল ও উপকরণের মূল্যবৃদ্ধি, দেশি কাপড়ের বাজার তৈরিতে সংকট, নতুন প্রযুক্তির যন্ত্রচালিত তাঁতের সঙ্গে সক্ষমতায় পেরে না ওঠা, বিপণন ব্যর্থতা, যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের অভাব ও পুঁজি সংকটে ধুঁকে ধুঁকে চলছে সম্ভাবনাময় এ শিল্প।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here