বঙ্গোপসাগর: জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের বৈচিত্র্যময় প্রতিবেশ ব্যবস্থা

0
438

থৈ নীল জলরাশির বৈচিত্র্যময় এক প্রতিবেশ ব্যবস্থা বঙ্গোপসাগর। এই উপসাগরের অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত ভূমিকা অপরিসীম। হাজারো প্রাণ-বৈচিত্র্যে ভরপুর এই সাগরের জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষণের লক্ষ্যে ঘোষিত হয়েছে বাংলাদেশের একমাত্র সামুদ্রিক রক্ষিত এলাকা।

ভৌগলিক অবস্থানের কারণে আমরা পেয়েছি সামুদ্রিক জীব-বৈচিত্র্যের স্বর্গরাজ্য বঙ্গোপসাগর। বিশাল এই জলরাশির সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড অঞ্চলকে কেন্দ্র করে ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশর একমাত্র সামুদ্রিক রক্ষিত এলাকা মেরিন প্রোটেকটেড এরিয়া। মূলত সাগরের জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষণের লক্ষ্যে এই রক্ষিত এলাকা তৈরি করা হয়েছে।

পৃথিবীর বৃহত্তম উপসাগর, বঙ্গোপসাগর প্রতিবেশে রয়েছে জলজ জীব-বৈচিত্র্যের এক অনন্য সম্ভার। সামুদ্রিক মাছ, তিমি, কাছিম, হাঙ্গর, পাখিসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণীর আবাস এই সাগরে।

ইলিশ, রূপচাঁদা, সুরমা, টুনা প্রভৃতি মাছের সমারোহে বঙ্গোপসাগর মাছের এক বিশাল সাম্রাজ্যে  পরিণত হয়েছে। কিন্তু যুগোপযোগী ব্যবস্থাপনা থাকার কারণে আমাদের সামুদ্রিক সম্পদ সঠিকভাবে আহরিত হচ্ছেনা। এর সাথে যুক্ত হয়েছে জলবায়ুর পরিবর্তনের প্রভাব ও বিভিন্ন ধরনের দূষণ।

সাগরের স্বাভাবিক ভারসাম্য ধরে রাখতে সামুদ্রিক সম্পদ আহরণ ও ব্যবস্থাপনায় প্রয়োজন কার্যকরী উদ্যোগ। সুচিন্তিত ও টেকসই পরিকল্পনা গ্রহণ করে একদিকে যেমন বাঁচানো সম্ভব সাগরের প্রতিবেশ, তেমনি টিকিয়ে রাখা সম্ভব অমিত সম্ভাবনাময় সামুদ্রিক সম্পদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here