বস্তা ভর্তি ব্যালট, কুয়েত-মৈত্রী হলে ভোট গ্রহণ স্থগিত (ভিডিও)

0
159

ডাকসু নির্বাচন শুরু হওয়ার পর ছাত্রলীগ প্যানেলের প্রার্থীদের পক্ষে সিল মারা এক বস্তা ব্যালট পেপার উদ্ধার করার পর বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। সকাল ৮টায় ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন শুরু হওয়ার আগেই ওই হলের ছাত্রীরা ব্যালট বাক্স খালি দেখতে চায়। এরপর তা দেখানো সম্ভব না হলে ভোট গ্রহণ বিলম্বিত হয়। এসময় ছাত্রীরা প্রতিবাদ জানাতে থাকে। তাদের প্রতিবাদের মুখে এই হলে ভোট গ্রহণ শুরুই করা যায়নি। এরপর ভোট স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রোভিসি (প্রসাশন) অধ্যাপক ড. মু. সামাদ।

একপর্যায়ে প্রাধ্যক্ষ শবনম জাহানসহ প্রেভিসিকে অবরুদ্ধ করে রাখে ছাত্রীরা। ডাকসু নির্বাচনের প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক ড. এসএম মাহফুজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। আপাতত ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে।

বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলের মনোয়ারা বিল্ডিংয়ে ভোটের সব আয়োজন করা হয়েছিল। তারপাশে অডিটোরিয়াম ও রিডিং রুম। সকাল থেকেই সেখানে ছাত্রীরা দাবি করতে থাকেন ব্যালট বাক্স দেখার। স্বতন্ত্র ভিপি প্রার্থী নুরুন্নাহার পলি এসময় অভিযোগ করেন, একটা হলে এক বস্তা ব্যালট পেপার পাওয়া যায়… ভোটের আগেই যেখানে কি না আগে থেকে সিল মারা হয়েছে। এ বিষয়টা আমরা প্রক্টরকে জানিয়েছি। হল প্রভোস্টকে জানিয়েছি… তারা ব্যবস্থা নেয়নি। যখন আমরা ব্যালটসহ মিডিয়ার সামনে উপস্থাপন করেছি.. তখন তারা ভোট স্থগিত করেছে। ভোট স্থগিত করকে কী, তারা ভোট শুরুই করতে পারেনি। হল প্রশাসনের যোগসাজসে ছাত্রলীগ প্যানেল এ কাজ করেছে বলেও অভিযোগ তার।

সিল দেওয়া ব্যালট উদ্ধার : কুয়েত-মৈত্রী হলে ভোটগ্রহণ বন্ধ (ভিডিও)

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল ছাত্র সংসদের ভোটগ্রহণে কুয়েত-মৈত্রী হলে শিক্ষার্থীদের সহায়তায় সীল মারা ব্যালট উদ্ধার করেছে প্রশাসন। সোমবার সকাল ৯ টায় বাংলাদেশ কুয়েত-মৈত্রী হল থেকে এ ব্যালট পেপার উদ্ধার করা হয়। খোজঁ নিয়ে জানা যায় ভোটগ্রহণ শুরুর আগে ভোটাররা ব্যালট পেপারা দেখতে চান। কর্তৃপক্ষ তা দেখালে অস্বীকৃতি জানালে একপর্যায়ে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা নিজেরাই বস্তাবন্দি ব্যালট পেপার খুঁজে বের করে। এদিনে হলের সামনে এ নিয়ে বিক্ষোভ করছে সাধারণ ছাত্রীরা। কয়েকজন জানান, এসব সীল মারা ব্যালট পেপার ছাত্রলীগ সমর্থিত প্যানেলের।

Posted by ভুতের আস্তানা on Sunday, March 10, 2019

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here