বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট সিরিজ পরিসংখ্যান

0
155

বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট জয় এসেছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজে। অনেক ব্যক্তিগত কীর্তিও ক্যারিবিয়দের বিপক্ষে। তবে গত নয় বছর ধরে জয় অধরা এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে। পেছনে ফিরে দেখবো বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ।

টেস্টে বাংলাদেশের যত প্রাপ্তি তার বড় অংশজুড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বিদেশের মাটিতে লাল-সবুজের প্রথম টেস্ট আর সিরিজ জয়ের কীর্তি এই ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে, ২০০৯ সালে। তাও আবার হোয়াইটওয়াশ করে।

তাতে অবশ্য বড় অবদানটা রেখেছিলো বোর্ডের সঙ্গে বেতন নিয়ে ক্রিকেটারদের বিরোধ। একেবারে দ্বিতীয় সারির দল নামিয়েছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

২০০২ সাল থেকে শুরু হওয়া এই দ্বৈরথে এখন পর্যন্ত ১৪ টেস্টে মুখোমুখি হয়েছে দুদল। যার ১০টিতেই হার। দুই জয়ের সঙ্গে দুই ড্র। আর দেশের মাটিতে খেল ৬ টেস্টে এক ড্র বাকি ৫টিতে হার।

ক্যারিবিয়ানে ২০০৪ সালের সফরটা দলীয় অর্জনে সমৃদ্ধ না হলেও এক ইনিংসে তিন সেঞ্চুরির সাফল্য সবচেয়ে জ্বলজ্বলে। সেন্ট লুসিয়া টেস্টে সেঞ্চুরি করেছিলেন মোহাম্মদ রফিক, খালেদ মাহমুদ ও হাবিবুল বাশার। যে রেকর্ড টিকে ছিলো পৌনে এক যুগ।

এর আগের ১৪ টেস্টে ৭ জন অধিনায়কত্ব করেছেন ক্যারিবীয়দের। প্রতি সিরিজেই খেলেছে নতুন নেতৃত্বে। আর বাংলাদেশের ৫জন ক্যাপ্টেন্সি করেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

দুদলের লড়াইয়ে সবচেয়ে বেশি ৮৯৭ রান শিব্নারায়ন চন্দরপলের। প্রথম টেস্টে খেললে দুইয়ে থাকা তামিম ইকবাল সেটিকে টপকে যেতে পারতেন। খেলছেন যারা তাঁদের মধ্যে ক্রেগ ব্রাথওয়েট ৬৪৬ রান নিয়ে শীর্ষে। সাকিব আল হাসানের রান ৬৩০।

বোলারদের তালিকায় সাকিবের উপরে নেই কেউ। সবচেয়ে বেশি ৩৭ উইকেট বাংলাদেশ অধিনায়কের। ৩০ উইকেট নেয়া কেমার রোচও আছেন এবারের সিরিজে।

১৯৬ উইকেট নিয়ে মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে টেস্টে ২শ উইকেট থেকে মাত্র ৪ শিকার দূরত্বে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here