বুলবুলের প্রভাবে ভোর রাত থেকে ঝড়-বৃষ্টি, শনিবার মধ্যরাতেই আঘাত হানার আশঙ্কা

0
13

প্রথমে পূর্বাভাস ছিল সোমবার, তারপর ইঙ্গিত এল রোববার দুপুরের আগে। শেষ পর্যন্ত খবর, শনিবার মধ্যরাতেই ভারতের পশ্চিম বাংলা ও বাংলাদেশের সুন্দরবনে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড়। শনিবার ভোর রাত থেকেই বুলবুলের প্রভাব আরো স্পষ্ট হতে শুরু করে। ভোর থেকেই ঝড়ো হাওয়ার পাশাপাশি বিচ্ছিন্নভাবে লাগাতার বৃষ্টি হয়ে চলেছে। ভারতের আবহাওয়া দফতর থেকে সাম্প্রতিক পাওয়া খবর অনুযায়ী গত ৬ ঘন্টায় ১৭কিমি প্রতি ঘন্টার গতিবেগে আরও উত্তরের দিকে এগিয়েছে বুল বুল। আকার নিয়েছে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে। এই সময়

শনিবার রাত পর্যন্ত ভারতের আবহাওয়া বিভাগ পূর্বাভাসে জানায়, অতি গভীর ঘূর্ণিঝড় রয়েছে সাগর থেকে আর মাত্র ২৭০ কিলোমিটার দূরে। তার নিজের গতি বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা আগেই উপকূলে চলে আসছে। শনিবার সকালের দিকে একটু শক্তি বাড়ালেও স্থলভাগের কাছে এসে একটু দুর্বল হবে। তাতেও তীব্র ঘূর্ণিঝড় হিসেবে বুলবুল আছড়ে পড়বে সুন্দরবনে। সুন্দরবনে বাড়তি নজর থাকলেও সতর্কতা বেড়েছে দিঘা থেকে কলকাতা, সর্বত্র। একই নজরদারি রয়েছে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায়।

শনিবার মধ্যরাতেই বাংলা-বাংলাদেশের সুন্দরবনে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড়।একদিকে সাগর দ্বীপ, অন্যদিকে পড়শি দেশের খেপুপাড়া। এর মধ্যে দিয়েই বঙ্গোপসাগর থেকে স্থলভাগে ঢুকবে তীব্র ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। দুর্যোগ মোকাবিলায় শুক্রবার থেকেই তুমুল তৎপরতা সাগরদ্বীপ, কাকদ্বীপ, নামখানায়। সতর্ক করা হয়েছেউপকূলবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের। চলছে মাইকিং। মৎসজীবীদের দ্রুত ঘরে ফেরানো হচ্ছে। সমুদ্রে যাওয়ার উপর জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। বহু মানুষকে ইতোমধ্যে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা করা হচ্ছে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকাসহ ভারতের ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, এমনকী কলকাতাতেও। জোয়ারের জলের চেয়ে ১-২ মিটার বেশি উঁচুতে পৌঁছতে পারে অশান্ত সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস। ২০০৯ সালে আয়লার ভয়াবহতা বাড়িয়ে তুলেছিল ভরা কোটাল। এবার কোটাল গতি পাওয়ার সময়ই ঘূর্ণিঝড়। ক’দিন পরই রাসপূর্ণিমা। শনিবার দ্বাদশী, রাত আটটা নাগাদ ভরপুর জোয়ারও থাকবে সুন্দরবনের নদীতে।বুল বুলের গতিবেগের উপর নজর রাখছে পারাদ্বীপ ও গোপালপুরের ডপলার ওয়েদার র‌্যাডার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here