বুলবুলের মরদেহ শহীদ মিনারে নেয়া হবে বুধবার

0
225

মুক্তিযোদ্ধা, সঙ্গীত পরিচালক, সুরকার ও গীতিকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মৃত্যুতে সাংস্কৃতিক অঙ্গণে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) ভোর ৪টায় দিকে রাজধানীর আফতাবনগরে নিজ বাসায় মারা যান তিনি। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আগামীকাল বুধবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হবে তার মরদেহ।

সুরের নেপথ্যে বাংলার সঙ্গীতপ্রেমীরা যুগে যুগে খুঁজবেন তাকে। তিনি থাকবেন সংস্কৃতিবোদ্ধাদের মণিকোঠায়। তিনি আহমেদ ইমতিয়াজ বুলুবুল। যিনি সুরের মূর্ছনায় বাঙালিকে তার শেকড়ের সাথে পরিচয় করিয়েছেন হাজার বার।

১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি জন্ম নেয়া এই কিংবদন্তী একাধারে ছিলেন গীতিকার, সুরকার এবং সঙ্গীত পরিচালক। ১৯৭১ সালে মাত্র ১৫ বছর বয়সে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন সক্রিয়ভাবে। মানবতাবিরোধী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত গোলাম আজমের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছিলেন মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। সেসময় ট্রাইব্যুনালের কাছে একাত্তরের গণহত্যা, নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন তিনি।

২০১২ সালে তাঁর হার্টে আটটি ব্লক ধরা পড়ে। নিজের অসুস্থতার কথা জানিয়ে গত বছর ফেসবুকে পোস্ট দিলে বিষয়টি নজরে আসে প্রধানমন্ত্রীর। সঙ্গে সঙ্গেই একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য এই শিল্পীর চিকিৎসার সব দায়িত্ব নেন শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার রাজধানীর আফতাবনগরে নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান তিনি। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। চলচ্চিত্র অঙ্গণেও নেমে আসে দীর্ঘশ্বাসের সাতকাহন। বাংলার অপূরণীয় এই ক্ষতি যেন কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না দীর্ঘদিনের সহযোদ্ধারা।

সঙ্গীত শিল্পী কুমার বিশ্বাস বলেন, ওনার কিছু দেওয়ার ক্ষমতা ছিল। তবে একটু আগেই তিনি চলে গেলেন। ওনার চলে যাওয়া অপূরণীয় ক্ষতি।

আহমেদ ইমতিয়াজের ছেলে সামির আহমেদ বলেন, ওনি একজন লিজেন্ড। দেশের জন্য অনেক কিছু করে গেছেন।

সঙ্গীতের অবদানের জন্য একুশে পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, রাষ্ট্রপতি পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মানে ভূষিত হয়েছেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। সূত্র: সময়টিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here