বোরকা পড়া মহিলাদের মেহেদীই কাল হলো বৃদ্ধ দম্পতির

0
295

বাসা ভাড়া নেয়ার কথা বলে আসে ৫ মহিলা। সকলেই বোরকা পরা ছিলেন। প্রথম দিন এসে ঘর দেখে গেলেও পাকা কথা দেয়ার কথা ছিল রোববার। এসেছিলেনও তারা। তবে তাদের উদ্দেশ্য ছিল বৃদ্ধ দম্পত্তিকে অজ্ঞান করে লুট করা।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার সকালে ৪-৫ জন মহিলা বাসা ভাড়ার নেওয়ার কথা বলে ডেমরার সারুলিয়ার পূর্ব বক্সনগর এলাকার বাড়িতে ঢোকে। তাদের একজন স্বামীকে নিয়ে বাসায় থাকার কথা বলে ঘর দেখে চলে যায়। রোববার ঘরের অগ্রিম ভাড়া দেওয়ার কথা ছিল। তারা আবার এসে বৃদ্ধ দম্পতির মাথায় মেহেদি দিয়ে দেয়। বেশকিছু সময় পর তারা চলে গেলে প্রতিবেশীরা বাসায় ঢুকে ঘরের ভেতর দুজনকেই অচেতন অবস্থায় দেখে। পরে প্রতিবেশীরা ওই দম্পতির ছেলে আমিনুল ইসলামকে খবর দিলে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

গতকাল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গের সামনে মাটিতে বসে শোকে মাতম করছিলেন ছেলে আমিনুল। ঠিক ওই সময় তার মোবাইল ফোন বেজে ওঠে। ওপাশ থেকে পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইছিল তার ভাগিনা। ওই সময় তিনি মাটি চাপড়ে বলছিলেন, মামু ও মামু, তোমার নানা-নানি নাই, গেছে গা। আমার সব শেষ, আমি এতিম হইয়া গেছি।

জানা গেছে, রোববার রাজধানীর ভাড়াটিয়া বেশে ৪-৫ জন নারী ঘরে ঢুকে বৃদ্ধ দম্পতিকে অচেতন করে মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়। সন্ধ্যার দিকে অচেতন ওই দম্পতি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তাদের নাম আব্দুস ছাত্তার (৭৫) ও সাহেরা বেগম (৬০)। নিহত দম্পতির গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে। ডেমরা সারুলিয়ার পূর্ব বক্সনগর এলাকার একতলার নিজ বাড়িতে ৬টি ঘরের তিনটিতে বড় ছেলের সঙ্গে বসবাস করতেন এই দম্পতি। বাকি তিনটির মধ্যে দুটিতে ভাড়াটিয়া ছিল, অপর একটি রুম খালি ছিল। নিহত আব্দুস ছাত্তার বাংলাদেশ ব্যাংকের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সহকারী ইমাম ছিলেন এবং সাহেরা বেগম ছিলেন গৃহিণী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here