বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’র উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

0
124

বাংলাদেশ বিমানের বহরে যুক্ত হওয়া উড়োজাহাজ বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’র উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ বুধবার (০৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এ বিমানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন তিনি।

এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন,“বাংলাদেশে যদি ৭৫ সালে ১৫ আগস্ট না আসতো তাহলে স্বাধীনতার ১০ বছর পরেই আমরা অনেক দূর এগিয়ে যেতাম। কিন্তু আমরা তা এগোতে পারি নি। আওয়ামী লীগ আসার পর থেকে এদেশের অগ্রযাত্রা শুরু। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে আমাদের এই বিমান বন্দরে কোন বোডিং ব্রিজ এসব তেমন কিছুই ছিলো না। বিমান বন্দরে নেমে হেঁটে বিমানে উঠতে হতো। আমি ক্ষমতায় এসেই আমি এটিকে আধুনিকায়ন করতে মনোনিবেশ করি এবং উন্নত করবার ব্যবস্থা নেই।

২০০৯ সালে পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর দেখি বিমানের অবস্থা অনেক খারাপ। আমি বিদেশে গেলে দেখতাম বিমানগুলোর অবস্থা। তখন বিমানে বিনোদনের কোন ব্যবস্থাও ছিলো না । এসব ধীরে ধীরে আমরা পরিবর্তন করার চেষ্টা করছি। যার ফলশ্রুতিতেই আজকের এই আধুনিক উড়োজাহাজ।

চতুর্থ প্রজন্মের সর্বাধুনিক সুযোগ সুবিধার উড়োজাহাজ বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার বাংলাদেশ বিমানের বহরে সংযুক্ত হয়, গত ১৯ আগস্ট। যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা ও সফলভাবে পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন শেষে আজ (বুধবার) বাণিজ্যিকভাবে এর যাত্রা শুরু হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পর সন্ধ্যায় ২৭১ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে যাত্রা করবে বিমানের প্রথম ড্রিমলাইনার।

এই সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক হিসাবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, ড্রিমলাইনার বিমানের ইমেজ বাড়ালেও মুনাফা করতে হলে ফ্লাইট শিডিউল ঠিক রাখার পাশাপাশি আসন ফাঁকা থাকা রোধে দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

বোয়িংয়ের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী নভেম্বরে একটি , ২০১৯’র সেপ্টেম্বরে আরো দুটিসহ মোট চারটি ড্রিমলাইনার যুক্ত হচ্ছে বিমানের বহরে। অত্যাধুনিক চারটি ড্রিমলাইনার দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপের বন্ধ হয়ে যাওয়া রুটে ফ্লাইট চালুর পরিকল্পনা করছে বিমান। সূত্র: সময় টিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here