ভুয়া গ্রেফতারী পরওয়ানা রোধে হাইকোর্টের নির্দেশনা

0
21

ভুয়া গ্রেফতারী পরওয়ানা রোধে ব্যাবস্থা গ্রহণের জন্য কয়েকদফা নির্দেশনা দিলেন হাইকোর্ট।

আওলাদ হোসেন নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে একের পর এক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখিয়ে এক কারাগার থেকে আরেক কারাগারে পাঠানোর প্রেক্ষাপটে করা রিটের শুনানি নিয়ে
বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ নির্দেশনাগুলো দেন। তবে আওলাদের বিষয়ে জারি করা রুলটি রিট এখতিয়ারভুক্ত কোন হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানি জন্য নিতে বলা হয়েছে বলে জানান রিটের পক্ষের আইনজীবী এমাদুল হক বসির।

ভুয়া গ্রেফতারী পরওয়ানা রোধে হাইকোর্টের  নির্দেশনাগুলো হচ্ছে:

১) গ্রেফতারী পরোয়ানা ইস্যুর সময় গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রস্তুতকারী ব্যক্তিকে ফৌজদারী কার্যবিধির ধারা ৭৫ এর বিধান মতে নির্ধারিত ফরমে উল্লেখিত চাহিদা অনুযায়ী সঠিক ও সুস্পষ্ট ভাবে তথ্যাদী পূরন করতে হবে। যেমন:

ক) যে ব্যক্তি বা যে সকল ব্যক্তি পরোওয়ানা কার্যকর করবেন, তার বা তাদের নাম এবং পদবী ও ঠিকানা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করতে হবে।

খ) যার প্রতি পরোয়ানা ইস্যু করা হচ্ছে তার নাম ও ঠিকানা মামলার নম্বর ও সুনির্দিষ্ট ধারাসহ সুস্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করতে হবে।

গ) সংশ্লিষ্ট জজ বা ম্যাজিস্ট্রেটের স্বাক্ষরের নিচে নাম ও পদবীর সীলসহ সংশ্লিষ্ট আদালতের সুস্পষ্ট সীল ব্যবহার করতে হবে।

ঘ) গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রস্তুতকারী ব্যক্তির (অফিস স্টাফ) নাম, পদবী ও মোবাইল নাম্বারসহ সীল ও তার সংক্ষিপ্ত স্বাক্ষর ব্যবহার করতে হবে, যাতে পরোয়ানা কার্যকরকারী ব্যক্তি পরোয়ানার সঠিকতা সম্পর্কে কোন সন্দেহের উদ্বেগ হলে পরোয়ানা প্রস্তুতকারি সাথে সরাসরি যোগাযোগ করে সঠিকতা নিশ্চিত হতে পারেন।

২) গ্রেফতারী পরোয়ানা প্রস্তুত হলে স্থানীয় অধিক্ষেত্র কার্যকর করার জন্য সংশ্লিষ্ট পিয়নবহিতে এন্ট্রি করে বার্তা বাহকের মাধ্যমে তা পুলিশ সুপারের কার্যালয় কিংবা সংশ্লিষ্ট থানায় প্রেরণ করতে হবে। এবং পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের বা থানার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কর্তৃক উক্ত পিয়নবহিতে স্বাক্ষর করে তা বুঝে নিতে হবে। গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রেরণ ও কার্যকর করার জন্য পর্যায়ক্রমে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার কাজে লাগানো যেতে পারে।

৩) স্থানীয় অধিক্ষেত্রের বাইরের জেলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা কার্যকর করার ক্ষেত্রে পরোয়ানা ইস্যুকারি কর্তৃপক্ষ গ্রেফতারী পরোয়ানা সীলগালা করে এবং অফিসের সীলমোহরের ছাপ দিয়ে সংশ্লিষ্ট জেলার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রেরণ করবেন।

৪) সংশ্লিষ্ট পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকতা সীল মোহরকৃত খাম খুলে প্রাপ্ত গ্রেফতারি পরোয়ানা পরীক্ষা করে এর সঠিকতা নিশ্চিত হয়ে পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য ব্যবস্থা নিবেন। তবে কোন গ্রেফতারি পরোয়ানার ক্ষেত্রে সন্দেহের উদ্বেগ হলে পরোয়ানা প্রস্তুতকারির মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে পরোয়ানার সঠিকতা নিশ্চিত হয়ে পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করবেন।

৫) গ্রেফতারী পরোয়ানা গ্রহণকারী কর্মকর্তা পরোয়ানা কার্যকর করার আগে পুনরায় পরীক্ষা করে যদি কোন সন্দেহ পোষণ করেন সেক্ষেত্রে পরোয়ানা প্রস্তুতকারির মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে সঠিকতা নিশ্চিত হয়ে পরোয়ানা কার্যকর করবেন।

৬) গ্রেফতারী পরোয়ানা অনুসারে গ্রেফতারের পর সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাকে উক্ত আসামি বা আসামিদের আইনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নিকটস্থ ম্যাজিস্ট্রেট বা জজ আদালতে পরোয়ানাসহ উপস্থাপন করতে হবে। এবং ম্যাজিস্ট্রেট বা জজ গ্রেফতারকৃত আসামি কিংবা আসামিদের জামিন প্রদান না করলে আদেশের কপিসহ হেফাজতি পরোয়ানামুলে জেল হাজতে প্রেরণসহ ক্ষেত্রমত সম্পূরক নথি তাৎক্ষণিকভাবে গ্রেফতারী পরোয়ানা ইস্যুকারী আদালত বরাবর প্রেরণ করবেন।

৭) সংশ্লিষ্ট জেল সুপার কিংবা অন্য কোন দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হেফাজতি পরোয়ানামুলে প্রাপ্ত আসামী বা আসামিদেরর গ্রেফতারী পরোয়ানা ইস্যুকারী আদালতে অবিলম্বে এই মর্মে অবহিত করবেন যে, কোন থানার কোন মামলার সূত্রে বা কোন আদালতের কোন মামলায় বর্ণিত আসামিদের পরোয়ানামুলে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। এবং পরবর্তীতে আসামীদের নতুন কোন গ্রেফতারী পরোয়ানা পেলে জেল সুপার পরবর্তী গ্রেফতারী পরোয়ানার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আদালত হতে নিশ্চিত হয়ে পরোয়ানা কার্যকর করবেন।

এদিকে হাইকোর্টের এই আদেশ বাস্তবায়নের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জন নিরাপত্তা বিভাগের সচিব, সুরক্ষা ও সেবা বিভাগের সচিব, আইন সচিব,পুলিশের মহাপরিদর্শক, মহা-কারা পরিদর্শক ও সুপ্রিম কোর্টের  রেজিস্ট্রার জেনারেলকে বলা হয়েছে। সেই সাথে আদেশটি প্রত্যেক দায়রা জজ ও মেট্রোপলিটন দায়রা জজসহ দেশের সকল ট্রাইব্যুনাল, বিশেষ জজ আদালতের বিচারক, চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটকে অবগত করতে বলা হয়েছে। সূত্র: চ্যানেল আই

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here