মানুষ মানুষের জন্য অর্থের অভাবে অস্ত্রোপচার থেমে থাকবে তামান্নার?

0
235

বয়সে হেসেখেলে বেড়ানোর কথা তামান্নার (১৩)। উচ্ছলতায় মেতে থাকার কথা সারাক্ষণ। সহপাঠীদের সঙ্গে খুনসুটিতে পার করার কথা সময়। কিন্তু তামান্না এসবের কিছুই করতে পারছে না। বরং বুকের ব্যথায় কাতরাচ্ছে সে। তার হৃৎপিণ্ডে যে বড় ছিদ্র ধরা পড়ার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসক।

তামান্না আক্তারের বাড়ি চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের চরপয়ালী গ্রামে। বাবা আবু তাহের মিয়াজী শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী। মা শাহিনুর বেগম দরজির কাজ করে সংসার চালান। তামান্না স্থানীয় আঁচলছিলা উচ্চবিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

শাহিনুর বেগম বলেন, গত জানুয়ারিতে তামান্নার হৃৎপিণ্ডে একটি বড় ছিদ্র ধরা পড়ে। জরুরিভাবে হৃৎপিণ্ডে অস্ত্রোপচার করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। এতে আট লাখ টাকা দরকার। কিন্তু তাঁদের দরিদ্র পরিবারের পক্ষে এ টাকা জোগাড় করা সম্ভব নয়। তামান্নার শারীরিক অবস্থাও অবনতির দিকে। অর্থাভাবে অস্ত্রোপচারও হচ্ছে না।

শাহিনুর আরও জানান, একটি ছোট্ট ঘর ছাড়া তাঁদের আর কোনো সম্পদ নেই। প্রায় এক বছর ধরে তামান্না বুকের ব্যথায় ভুগছিল। তার চিকিৎসা করাতে এরই মধ্যে অনেক টাকা খরচ হয়েছে। এখন তামান্নাসহ তিন ছেলেমেয়ে নিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন শাহিনুর।

চিকিৎসকের বরাত দিয়ে শাহিনুর বলেন, গত জানুয়ারিতে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতাল এবং ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকেরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তামান্নার হৃৎপিণ্ডে একটি বড় ছিদ্র থাকার কথা জানান। তাঁর মেয়ের হৃৎপিণ্ডে জরুরিভাবে অস্ত্রোপচার করাতে হবে। অন্যথায় সে বাঁচবে না। অস্ত্রোপচার করাতে কমপক্ষে আট লাখ টাকা দরকার। এ টাকা জোগাড় করা তাঁদের পক্ষে সম্ভব নয়। চিকিৎসার অভাবে তাঁর মেয়েটি দিন দিন আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছে। দিনরাত বুকের ব্যথায় কাতরাচ্ছে। কিছু খেতে পারছে না।

জানতে চাইলে নারায়ণপুর ইউপির চেয়ারম্যান জহিরুল মোস্তফা তালুকদার গতকাল মঙ্গলবার বলেন, মেয়েটিকে বাঁচানো দরকার। এ জন্য সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিদের এগিয়ে আসা উচিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here