মারা গেলে ফেসবুক অ্যাকাউন্টের কী হয়?

0
120

কজন মানুষ মারা যাওয়ার পর তার সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক অ্যাকাউন্টের কী হয়? এটি এখন একটি বড় প্রশ্ন অনেকের জন্যই। তবে আপনি চাইলে আপনার সম্পদের মতো বেঁচে থাকতেই ফেসবুকেরও উত্তরাধিকার ঠিক করে যেতে পারেন।
ডিজিটাল এই যুগে আলোচনার একটি বড় বিষয় এখন ডিজিটাল লিগ্যাসি।

সম্প্রতি এ বিষয়ে ফেসবুকে নতুন ফিচার যোগ করা হয়েছে। আর এসব বিষয় নিয়ে বিবিসির সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির গ্লোবাল পলিসি ম্যানেজমেন্টের প্রধান মনিকা বিকার্ত কথা বলেছেন।
কেউ মারা গেলে তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের কী হবে এমন প্রশ্নে ফেসবুকের গ্লোবাল পলিসি প্রধান মনিকা বিকার্ত বলেন, ‘এটা এই মুহূর্তে আমাদের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জের জায়গা। প্রিয়জন হারানো সত্যি বেদনার, ফেসবুকে যে মানুষটা বিদায় নিলেন তাকে আমরা সম্মান জানাতে চাই, ওই মানুষটির পছন্দ অপছন্দের মর্যাদা রাখতে চাই। সেই সাথে এটাও নিশ্চিত করতে চাই যে পদ্ধতিটা তার পরিবারের জন্য সহজ হয়। তবে এতো কিছু সন্তোষজনকভাবে করাটা আমাদের জন্য সত্যি কঠিন।’
বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ২০০ কোটির বেশি ব্যবহারকারি ফেসবুক ব্যবহার করলেও বেশিরভাগ ব্যবহারকারিই জানেন না মারা যাওয়া সম্পর্কে ফেসবুকে কী কী অপশন রয়েছে।
এ বিষয়ে মনিকা বিকার্ত বলেন, ‘আপনি মারা যাওয়ার পর ফেসবুক কেমন রাখতে চান তা ফেসবুকে রয়েছে। যেটাকে আমরা বলি লিগ্যাসি কনট্যাক্ট। এখানে আপনি চাইলে কাউকে ঠিক করে যেতে পারেন যে আপনার মৃত্যুর পর আপনার অ্যাকাউন্টটির দেখাশোনা করবে।
এক্ষেত্রে আপনি নিজেই ঠিক করে যেতে পারবেন নিয়ন্ত্রণ দেওয়া ব্যাক্তির ক্ষমতা কতটুকু থাকবে। আপনি তাকে আপনার প্রোফাইল ছবি পরিবর্তন কিংবা প্রোফাইলে কিছু আপডেট দেওয়ার অনুমতি দিয়ে যেতে পারেন। তবে সে কখনই আপনার মতো অ্যাকাউন্টটি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না। সে হয়তো কিছু অপশন ব্যবহার করতে পারবে। চাইলে আপনার অ্যাকাউন্ট ডিলিট করতে পারবে কিন্তু কখনই আপনার ব্যক্তিগত মেসেজ দেখতে পারবে না।’

বিকার্ত আরও বলেন, ‘আবার কেউ যদি চায় মারা যাওয়ার পর তার অ্যাকাউন্টটি বন্ধ হয়ে যাক তা ফেসবুক করে দিতে পারে। তবে আমার মনে হয় এই আলোচনা আগে থেকেই করে রাখতে হবে যে আপনার ডিজিটাল লিগ্যাসি কেমন হবে। আপনার অনলাইন অ্যাক্টিভিটি, ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, অন্যান্য অ্যাকাউন্ট কেমন দেখতে চান তা হবে অনেকটা আপনার স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তির মতো, যেগুলো নিয়ে হয়তো আমরা আগে থেকে ভাবিই না, কিন্তু সেগুলো এমনভাবে রেখে যেতে চাই যাতে আপনার প্রিয়জনদের কোনো সমস্যায় না পড়তে হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here