মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট দলের মনোনায়ন পেলেন জো বাইডেন

0
69

বাংলাদেশ সময় বুধবার সকাল ৮টায় যুক্তরাষ্ট্রের ৫৭টি অঙ্গরাজ্য থেকে ভার্চুয়াল ভিডিও বার্তায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থীতার জন্য ডেমোক্রেট প্রতিনিধিদের মনোনায়ন গ্রহণ করেন জো বাইডেন। মনোনীত হওয়ার পর স্ত্রী জিল বাইডেন ও নাতি-নাতনিদের সঙ্গে লাইভে সবাইকে ধন্যবাদ জানান বাইডেন। টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে ডেমোক্রেট দলের মনোনায়ন পাওয়া আমার জীবনের সেরা সম্মান।’ সিএনএন

ডেলাওয়্যারের হাই স্কুল থেকে দেয়া ভিডিও বার্তায় সাবেক সেকেন্ড লেডি জিল বাইডেন বলেন, ‘যে বোঝা আমরা বহন করছি তা অনেক ভারী। আমাদের একটি শক্ত কাঁধ প্রয়োজন। বাইডেনের যুক্তরাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেয়ার যোগ্যতা আছে। তিনি আমাদের ঐক্যবদ্ধ করতে পারবেন।’ প্রসঙ্গত, ৯০ এর দশকে এই স্কুলেই ইংরেজি পড়াতেন জিল। জিল প্রতিশ্রুতি দেন, ‘বাইডেনের নির্বাচনে এই কক্ষ আবার হাসিতে পরিপূর্ণ হয়ে উঠবে। ’ জিলের বক্তব্যের শেষে তাকে জড়িয়ে ধরে বাইডেন বলেন, ‘হ্যালো, আমি জিল বাইডেনের স্বামী, তিনি আমার দেখা সবচেয়ে দৃঢ় নারী।’

দ্বিতীয় দিলের সম্মেলনের প্রথমেই বাইডেনকে সমর্থন করে বার্তা দেন ডেমোক্রেট দলের ১৭ জন উঠতি তরুণ রাজনীতিবিদ। ২ ঘণ্টার সম্মেলনের শেষে ‘নেভার ব্রেক’ গানটি পরিবেশ করেন গায়ক জন লিজেন্ড।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টার ও তার স্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশের ইতিহাসের এই মুহুর্তে বাইডেনই সঠিক ব্যক্তি। তিনি দায়িত্বশীল এবং যত্নশীল।’

সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন বলেন, ‘ট্রাম্প নিজের দায়িত্বকে অস্বীকার করে দোষারোপ করে যাচ্ছেন। যুক্তরাষ্ট্রে বেকারত্বের হার তিনগুণ হয়েছে। এই মুহুর্তে ওভাল অফিস নিদের্শনা দেয়ার কেন্দ্রের বদলে ঝড়ের কেন্দ্রের পরিণত হয়েছে। চারদিকে বিশৃঙ্খলা চলছে। বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রে পুনরায় স্থিতিশীলতা আনবেন।’

সাবেক প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডির কন্যা ও নাতনি বলেন, ‘আমাদের এমন একজনকে দরকার যিনি অন্যদেশের দ্বারা সম্মানিত হবেন এবং আমাদের জন্য কাজ করবেন। যিনি বলবেন না তার দেশ তার জন্য কি করেছে, যিনি প্রশ্ন করবেন, তিনি তার দেশের জন্য কি করতে পারেন?’

সাবেক রিপাবলিকান পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল বলেন, ‘বাইডেন বর্হিবিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান পুনরুদ্ধার করতে পারবেন এবং একনায়কতন্ত্র এবং স্বৈরাচারিতার চাটুকারীতা করার মতো জঘন্য বিষয়কে প্রত্যাখ্যান করবেন। বাইডেনের হোয়াইট হাউস বন্ধুদের সঙ্গে থাকবে এবং শত্রুদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে। তিনি কূটনৈতিক এবং তদন্ত কমিটিকে বিশ্বাস করবেন।’

রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেট প্রশাসনের কাজ করা সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল স্যালি ইয়েটস বলেন, ‘মুসলিম দেশগুলোর ওপর প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিরোধীতা করায় আমাকে পদচ্যুত করা হয়। প্রেসিডেন্সির দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে তিনি নিজের পদকে দেশের বদলে নিজের স্বার্থে ব্যবহার করছেন। ক্রমাগত গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর আঘাত হানছেন। মার্কিনিদের সতর্ক হতে হবে। আমাদের এমন একজন প্রেসিডেন্ট প্রয়োজন যিনি আইন এবং প্রশাসনকে সম্মান করবেন।’

সাবেক মার্কিন সিনেটর জন কেরি বলেন, ‘আমাদের এমন একজনকে দরকার যিনি পর্যবেক্ষণ করেন, অট্টহাসি দেবেন না। ট্রাম্প আমাদের দেশ বা আমাদের সেনাবাহিনীর জন্য কখনোই উঠে দাঁড়ান নি।’

ম্যাসাচুসেটসের সিনেটের এলিজাবেথ ওয়ারেন বলেন, ‘আমি আগামী ৭৭ দিনের দিকে তাকিয়ে আছি। বাইডেনের সঙ্গে এই লড়াইয়ে সঙ্গে থাকবো।’

সিনেটের সংখ্যালঘু দলের নেতা চাক শুমার যুক্তরাষ্ট্রের করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির জন্য ট্রাম্পের নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘ডোনাল্ড ট্রাম্প আমেরিকাকে পরিত্যাগ করেছে। আমাদের একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তিকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করতে হবে যার দেশকে নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতা আাছে। বার্নি স্যান্ডার্স, এলিজাবেথ ওয়ারেন, স্টিফেন ম্যানুচিন এবং মার্ক ওয়ার্নার আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে দেশে পরিবর্তন নিয়ে আসবো।’

বার্নি স্যান্ডার্সের সমর্থক ও ডেমোক্রেট কংগ্রেসওম্যান আলেক্সান্দ্রিয়া ওকাসিও কোর্তেজ বাইডেনকে সমর্থন জানিয়ে ৯৮ সেকেন্ডের ছোট্ট ভিডিও বার্তা দেন। তবে এই সময় বাইডেন যেনো ডেমোক্রেট দলের সোশ্যালিস্ট ঘরানার সমর্থকদের ভুলে না যান এই বার্তাও স্পষ্ট করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here