মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের শপথ হয়েছিল যেখানে, সেই মেহেরপুর ৪৮ বছর ধরে মন্ত্রিত্ব বঞ্চিত!

0
197

১৯৭১ সালে যে মেহেরপুরে অন্তবর্তীকালীণ সরকারের শপথ হয়েছিল সেই মেহেরপুর থেকে স্বাধীনতা ৪৮ বছরেও কেউ মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে পারেন নি। আগামী সোমবার বঙ্গভবনে নতুন মন্ত্রিসভা শপথ নেবে। মেহেরপুরবাসী তাকিয়ে আছে তাদের বঞ্চনার ইতিহাস কী প্রলম্বিত হবে না-কি ৪৮ বছর পর কেউ শপথ নেবে মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণার পর ১০ এপ্রিল মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী সরকার গঠিত হয়। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলা গ্রামে ‘মুজিবনগর সরকার’ শপথ গ্রহণ করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে বৈদ্যনাথতলা গ্রামের নামকরণ হয় মুজিবনগর। মুজিবনগর সরকারের কর্মকাণ্ড বাংলাদেশ ভূখন্ডের বাইরে থেকে পরিচালিত হয়েছিল বলে এ সরকার প্রবাসী মুজিবনগর সরকার হিসেবেও খ্যাত।

মুজিবনগর সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আবদুল মান্নান এমএনএ এবং স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেন অধ্যাপক ইউসুফ আলী এমএনএ। নবগঠিত সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামকে এখানে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল সরকার গঠন এবং ১৭ এপ্রিল সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হলেও মন্ত্রীদের মধ্যে দপ্তর বণ্টন হয় ১৮ এপ্রিল।

স্বাধীনতার পর বৈদ্যনাথতলায় নাম পরিবর্তন করে মুজিবনগর রাখা হয়েছে। মেহেরপুর জেলাটি ছোট এবং ২টি সংসদীয় আসন নিয়ে গঠিত। গত দু’টি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় সদস্যরা এখান থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্যরা থাকলেও বিএনপির মন্ত্রিসভায়ও কেউ স্থান পাননি। স্বাধীনতা পরবর্তী দেশের একমাত্র জেলা মেহেরপুর যেখানে কখনো কোনো মন্ত্রী পায়নি।

গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে মেহেরপুর থেকে আওয়ামী লীগের দু’জন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। মেহেরপুর-১ আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছেন অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন দোদুল মেহেরপুর-২ আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছেন সাহিদুজ্জামান। তাদেরকে ঘিরেই মেহেরপুরবাসী তাদের অপেক্ষাপূরণের স্বপ্ন দেখছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here