ম্যাচের পর যা বললেন মাশরাফি

0
147

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ বাংলাদেশ। সাদা বলের সিরিজটির একটি ম্যাচেও কিউইদের বিপক্ষে প্রতিরোধ গড়তে পারেনি মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। বুধবার ডানেডিনে ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন টাইগার দলপতি।পর পর তিন ম্যাচে ব্যর্থতার পাশাপাশি ইতিবাচক বিষয়গুলোও আলোচনা করেছেন মাশরাফি। তিনি বলেন, আমাদের মিডল ওয়ার্ডার-লোয়ার মিডল ওয়ার্ডারে কিছু রান পেয়েছে। মিঠুন দুইটা ম্যাচে রান পেয়েছে। সাব্বির ১০০ করেছে। সাইফুদ্দিন রান করছে আজকে ভালো বোলিংও করেছে। পজেটিভ বিষয় যেগুলো আছে সেগুলো হয়তো পেছনের দিকে। তবে দলের জন্য অবশ্যই এগুলো লাভজনক। তবে অবশ্যই ম্যাচ জিততে হলে টপ অর্ডার থেকে ভালো কিছু করতে হবে। নেগেটিভ যা আছে সঙ্গে পজেটিভ বিষয়গুলো বললাম। পাশাপাশি যে ভুল-ত্রুটিগুলো আমরা করেছি সেগুলো নিয়ে অবশ্যই আমাদের কাজ করার আছে।এদিন বল হাতে ব্যর্থ হলেও শুরুর দিকে ফিল্ডিংটা ঠিকই ছিল। গেল দুই ম্যাচ সেঞ্চুরি করা মার্টিন গাপটিলকে দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরিয়েছেন তামিম ইকবাল। তবে ইনিংসের শেষ দিকে ফের এলোমেলো বাংলাদেশ। অধিনায়কের মতে, ফিল্ডিং চাইলে ইমপ্রুভ করা যায়। বোলিং-ব্যাটিং কিছুটা সময়ের ব্যাপার। এখানে স্কিলের ব্যাপার আছে। ফিল্ডিংয়ে চেষ্টা করলে দেখতে ভালো লাগে, চেষ্টাটা বোঝা যায়।। হয়তো সবাই মানসিকভাবে একটু ধাক্কা খেয়েছিল। একটু তাড়াহুড়োও ছিল, তাই ওলট-পালট হয়েছে। যে ফিল্ডার থাকে তারা বিভ্রান্ত হয়ে যায়। আর সব সময় একই ছন্দে তো থাকা সম্ভব নয়, ক্যাচ মিস তো হতেই পারে।৩৯তম ওভারের দ্বিতীয় ওভারে ফিরে যান রস টেইলর। চার উইকেটে ব্ল্যাকক্যাপসদের দলীয় সংগ্রহ দাঁড়ায় ২০৪ রান। ঠিক ওই সময়ে ২৪ বলে ৩৭ রানের একটি কার্যকরীয় ইনিংস খেলেন জিমি নিশাম। আর এই ইনিংসটিই সফরকারী অধিনায়কের চোখে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে। মাশরাফি বলেন, নিশামের ইনিংসটাই টার্নিং পয়েন্ট। ৩৫ ওভার পর্যন্ত তাদেরকে আমরা এমন একটা জায়গায় রেখেছিলাম, ওই সময় আরেকটু ভালো বোলিং বা ফিল্ডিং করলে ওদেরকে ৩০০র নিচে রাখারও একটা সুযোগ ছিল। চারজন পড়ে যাওয়া মানে ওদের টেল এন্ডারে জুটি না হতে দিলে অবশ্যই ওদেরকে আটকে রাখার সুযোগ ছিল। তবে ওই সময় যে শট খেলেছে বা ঝুঁকি নিয়েছে তাতে ওরা সফল হয়েছে। আর আমরা পারিনি। সূত্র: আরটিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here