যারা টি-টোয়েন্টিতে চারের চেয়ে বেশি ছক্কা মেরেছেন

0
54

 ৯ ঘণ্টা নয় বা ৫ দিন নয়, মাত্র ৩ ঘণ্টার মধ্যেই খেলার চূড়ান্ত ফলাফল জানতে পারেন ভক্তরা। ক্রিকেট ফ্যানদের ব্যস্ত সময়ের মাঝে খুব অল্প সময় চেয়ে নেয় একটা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ।

তার থেকেও বড় কথা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ মানে ভাবার সময় নেই ব্যাটসম্যানদের। শুধুই রণংদেহি মেজাজে ধামাকা আর চার-ছয়ের বন্যা। সে ওপেনারই হোক আর হোক সে মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান, বিপক্ষে কোন বোলার আছে দেখলে চলবে না- শুধুই রানের পাহাড় গড়ে যেতে হবে। তবে এমনই কিছু ক্রিকেটার রয়েছেন যাঁরা চারের থেকে বেশি ছক্কা হাঁকানোর নজির দেখিয়েছেন এই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে। সেই তালিকায় কোন কোন ক্রিকেটার রয়েছেন, তাই দেখে নেওয়া যাক একনজরে।

এভিন লুইস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ): টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে বিশ্বের তাবড় তাবড় বোলারদের শাসন করেছেন এই ক্যারিবিয়ান তারকা ব্যাটসম্যান। এই এভিন লুইসের ঝুলিতে রয়েছে অনবদ্য এক রেকর্ড। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে চারের থেকে বেশি ছয় মেরেছেন তিনি। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে এভিন ৭৩টি ছয় মেরেছেন যেখানে তাঁর চারের সংখ্যা ৬৪টি।

আন্দ্রে রাসেল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ): টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ছয় মারা একটা বড় বিষয়। কারণ অল্প সময়ে টার্গেট থাকে বড় রান তোলার। সেই চেনা ফরম্যাটের বেশি ছক্কার তালিকায় রয়েছেন একের পর এক ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্লেয়ার। আন্দ্রে রাসেল তাঁদেরই একজন। ডানহাতি এই মারকুটে ব্যাটসম্যানের অসধারাণ কিছু ব্যাটিং স্কিলস রয়েছে। নিজের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ক্যারিয়ারে এখনও অবধি রাসেল ৪২টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন এবং চার মেরেছেন ৩২টি।

কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম (নিউজিল্যান্ড): বিধ্বংসী ব্যাটিং স্টাইলে বোলারদের হতাশ করে ছাড়েন নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যান কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। টি-টোয়েন্টিতে রানের পাহাড় গড়া গ্র্যান্ডহোমের নামে রয়েছে বেশ কিছু রেকর্ড, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল তাঁর ছয় মারার নজির। টি-টোয়েন্টিতে তাঁর নামের পাশে ২৯টি ছয় লেখা রয়েছে, যেখানে তিনি চার মেরেছেন ২৭টি।

পিটার মুর (জিম্বাবুয়ে): আপকামিং স্টার। কারণ খেলার সুযোগ পেয়েছেন খুবই কম। আর ইতিমধ্যেই নিজের এমন ট্যালেন্ট দেখিয়েছেন যাতে তাজ্জব ক্রিকেট দুনিয়া। তিনি জিম্বাবুয়ের সহ-অধিনায়ক পিটার মুর। পরবর্তীতে আরও সুযোগের অপেক্ষায় রয়েছেন পিটার মুর। তাঁর সহ-অধিনায়কত্বের প্রশংসাও করেছেন অনেকে। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট টিমের তিনি উইকেটকিপারও। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পিটার এখনও অবধি ২৪টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন, যেখানে তাঁর ব্যাট থেকে উঠে এসেছে ২২টি চার।

আসিফ আলী (পাকিস্তান): ইতিমধ্যেই বিগ হিটিং ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজের নাম লিখিয়ে ফেলেছেন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান আসিফ আলী। পাকিস্তান ক্রিকেট টিমে এই মুহূর্তে যে সব মারকাটারি ব্যাটসম্যানেরা রয়েছেন, আসিফ তাঁদের একজন। বিশ্বের তাবড় ক্রিকেটাররাও প্রশংসা করেছেন আসিফ আলীর। কারণ পাকিস্তান দলের সংকটজনক মুহূর্তে গর্জে উঠেছিল তাঁরই ব্যাট। এহেন আসিফ আলীই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ১৯টি ছয় মেরেছেন আর চার মেরেছেন ১৫টি।

রাহুল দ্রাবিড় (ভারত): এই নামটা দেখার পরই অনেকের চক্ষু চড়কবৃক্ষে ওঠার উপক্রম। কারণ এহেন রাহুল দ্রাবিড়ই ধীর গতিতে ব্যাটে বল ঠেলার মানুষ। কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আশ্চর্য কিছু কেরামতি দেখিয়েছেন দ্রাবিড়। গোটা ক্রিকেট ক্যারিয়ারে মাত্র একটিই টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন রাহুল দ্রাবিড়। সেই ম্যাচ ছিল ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে। আর ইংল্যান্ডের সেই আনলাকি বোলার ছিলেন সমিত প্যাটেল। সেই ম্যাচে ভারতীয় ক্রিকেটের ‘দ্য ওয়াল’ তিন-তিনটি ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন, যেখানে তাঁর ব্যাট থেকে একটিও চার উঠে আসেনি।

ইউসুফ পাঠান (ভারত): আর এক জাঁদরেল ব্যাটসম্যান। পাশাপাশি ইউসুফ পাঠান দুর্দান্ত ফিল্ডার এবং বলটাও করতে পারতেন ভালোই। রাজস্থান রয়্যালসের প্রাক্তন এই অলরাউন্ডার ভারতের হয়েও বেশ কিছু টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন। আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্স এবং হায়দরাবাদ ডেকান চার্জার্সের হয়েও ক্রিকেট খেলেছেন ইউসুফ। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে তাঁকে বীরেন্দ্র শেবাগের জায়গাও ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। এহেন পাঠানই এমন একজন ব্যাটসম্যান যিনি টি-টোয়েন্টিতে কমপক্ষে ১০টি ইনিংস খেলে রেকর্ড করেছেন বেশি সংখ্যাক ছয় মারার। গোটা টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে পাঠানের ছয়ের সংখ্যা ১৭টি, যেখানে তিনি চার মেরেছেন ১১টি। -ক্রিকইনফো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here