যে কারণে বিমানবন্দরে যাননি বাফুফে কর্মকর্তারা

0
147

ত বছর যারা (অনূর্ধ-১৫) সাফ ফুটবলে ভারতকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিলো, সেই কৃষ্ণা, তহুরা, মারিয়া, আখি ও শামসুন্নাহাররা এবার জয় করেছেন অনূর্ধ্ব-১৮ নারী সাফ ফুটবলের শিরোপা। ছয় দেশের অংশগ্রহণে এই টুর্নামেন্টর শিরোপা জয় করে দেশে ফিরে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কাছে কতটুকু সম্মান পেলেন নারী দলের সেনারা? এই প্রশ্নটাই ঘুরপাক খাচ্ছে ক্রীড়াঙ্গন জুড়ে। তাদের এই অর্জন নুন্যতম নয়, অনেক বড় অর্জন। এই বিশাল অর্জন নিয়ে গত সোমবার সকাল ৯টায় বিমানবন্দরে পাঁ রাখে মৌসুমীবাহিনী। সেখানে তাদের স্বাগত জানাতে যাননি বাফুফের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

বাফুফের মহিলা উইংয়ের চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরন বিমানবন্দরে খেলোয়াড়দের স্বাগত জানিয়ে এসি বাসে করে বাফুফে কার্যালয়ে এনে মিষ্টিমুখ আর ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। খেলোয়াড়দের প্রতি বাফুফের এই ভালবাসাকে যথেষ্ঠ মনে করছেন না ফুটবল সংশ্লিষ্টরা। দক্ষিণ এশিয়ার নারী ফুটবলে টাইগ্রেসদের এই অর্জন অনেক বড়। কিন্তু খেলোয়াড়দের প্রতি বাফুফের ভালবাসা একেবারেই নুন্যতম।

এ ব্যাপারে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন বলেছেন, ফুটবলের উন্নয়ন, খেলোয়াড়দের নানা সমস্যা এবং তাদের চাওয়া পাওয়া মোকাবিলা করাই সভাপতির প্রথম কাজ। আমাদের মেয়েরা যে রেজাল্ট এনেছে, এটা বাফুফের সকল সদস্য আর কর্মচারীদের পরিশ্রমের ফল। বিমানবন্দরে গিয়ে বাফুফে সভাপতির স্বাগত জানানোর খুব একটা প্রয়োজন হয় না। যোগ্য ব্যক্তিরাই বিমানবন্দরে গিয়েছিলো। খেলোয়াড়দের অবশ্যই বাফফে সংবর্ধনা জানাবে এবং তাদের পারফরমেন্সের মূল্যায়ণ করবে।

বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ বলেছেন, পূর্ব সিদ্ধান্ত ছিলো সোমবার সকাল ৯টায় বাংলাদেশ দলকে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরে আমি উপস্থিত থাকবো। কিন্তু হঠাৎ করে ওই দিন সকাল ১০টায় এসএসএফ (স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স) এর সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসতে হয়েছে। আগামী ১১ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা দেখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে উপস্থিত থাকবেন। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করেই বাফুফে কার্যালয়ে এসএসএফ এর সঙ্গে আমার বৈঠকে বসতে হয়। যে কারণে গত সোমবার বিমানবন্দরে যাওয়া সম্ভব হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here