লক্ষ্মীপুরে ১০ হাজার চালকের মধ্যে লাইসেন্সধারী ২৬ জন

0
344

ক্ষ্মীপুরে অদক্ষ, অপ্রাপ্ত বয়স্ক ও ড্রাইভিং লাইসেন্সহীন চালকরা চালাচ্ছে সিএনজি চালিত অটোরিকশা। লক্ষ্মীপুরে ১০ হাজার সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালকের মধ্যে ড্রাইভিং লাইসেন্স আছে মাত্র ২৬ জনের। চালকদের বেশিরভাগই আগে রিকশা চালাতেন। এ বিষয়ে প্রশাসনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা, বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল।

লক্ষ্মীপুর-ঢাকা সড়কের চন্দ্রগঞ্জ পর্যন্ত, রায়পুর-রামগঞ্জ ও রামগতি সড়কে চলাচল করছে প্রায় ১০ হাজার সিএনজি চালিত অটোরিকশা।
বিআরটিএর তথ্য অনুযায়ী, এর মধ্যে মাত্র ২৬ জন চালকের রয়েছে ড্রাইভিং লাইসেন্স।

চালকদের অভিযোগ, লাইসেন্স পেতে বিআরটিএ কার্যালয়ে গিয়ে দালালদের খপ্পরে পড়াসহ সরকার নির্ধারিত ফির দ্বিগুন লাগায় ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে পারছেন না তারা।

তবে বিআরটিএ ও পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, রেজিস্ট্রেশনবিহীন সিএনজি চালিত অটোরিকশা ও চাঁদাবাজি প্রতিরোধে প্রতিনিয়ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলছে।

লক্ষ্মীপুর বিআরটিএ এর সহকারী পরিচালক আনোয়ার হোসেন বলেন, লাইসেন্স বাসা বাড়িতে গিয়ে দেয়া সম্ভব নয়। চালকের লাইসেন্সের জন্য আমাদের কাছে আবেদন করতে হবে। আবেদন যাচাই-বাছাই করে প্রথমে শিক্ষানবিশ লাইসেন্স দেয়া হবে।

লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার আ স ম মাহাতাব উদ্দিন বলেন, চালকদের সহায়সতায় জন্য ট্রাফিক সেল গঠন করা হয়েছে। এই সেলের কাজ হচ্ছে যদি কোনো ব্যক্তি ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করে, তাহলে তার কাজগ পত্র নিয়ে লাইসেন্স করতে সহায়তা করা হয়।

দু-একটি সভা সেমিনার করে দায়সারাভাবে কাজ করে যাচ্ছে বিআরটিএ। এক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকের তদারকি আরো বাড়ানোর পরামর্শ লক্ষীপুরের বাসিন্দাদের। সূত্র: ইন্ডিপেনডেন্ট টিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here