লোকসংগীত উৎসব মাতাবেন যারা

0
247

রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে আজ বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) থেকে শুরু হচ্ছে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৮’। চলবে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত। এবারের আসরে সাত দেশের ১৭৪ জন শিল্পী লোকগান ও নাচে মাতাবেন উৎসব।সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত উৎসব উপভোগ করবেন দর্শক-শ্রোতারা। উৎসবের আয়োজন করছে সান ফাউন্ডেশন। উৎসবের তিন দিনের উল্লেখযোগ্য শিল্পীদের সম্পর্কে জেনে নিন কিছু তথ্য।উৎসবের প্রথম দিন মঞ্চে গাইবেন বাংলাদেশের বাউল শিল্পী আবদুল হাই দেওয়ান। ‘মাতাল বাউল’ রাজ্জাক দেওয়ানের শিষ্য হিসেবে তিনি পরিচিত। এছাড়া পরিবেশনায় অংশ নেবেন ভারতের সুফি সংগীতের জনপ্রিয় নাম ওয়াড়ালি ব্রাদার্স। পদ্মশ্রী ওস্তাদ পূরণচন্দ্র ও পেয়ারেলাল ওয়াড়ালিই ‘ওয়াড়ালি ব্রাদার্স’ নামে পরিচিত। পরিবেশনায় অংশ নেবেন পোল্যান্ডের ব্যান্ড দিকান্দা। ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত ব্যান্ডটির সাতটি অ্যালবাম বের হয়েছে।এদিনের অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে থাকবে ভারতের জনপ্রিয় শিল্পী সাত্যকি ব্যানার্জি। এই শিল্পী পড়ালেখা করেছেন সংগীতে। সরোদে তালিম নিয়েছেন পণ্ডিত দীপক চৌধুরীর কাছে। বর্তমানে তালিম নিচ্ছেন পণ্ডিত তেজেন্দ্র নারায়ণ মজুমদারে কাছে।এদিন নাচ পরিবেশন করবে বাংলাদেশের সামিনা হোসেন প্রেমা ও তার নৃত্যদল ‘ভাবনা’। ২০০৭ সাল থেকে দেশে ও দেশের বাইরে বিভিন্ন উৎসবে নৃত্য পরিবেশন করছে দলটি।দ্বিতীয় দিনের আয়োজনউৎসবের দ্বিতীয় দিনের পরিবেশনায় অংশ নেবেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী মমতাজ। প্রথম জীবনে বাবা মধু বয়াতির কাছে সংগীতে হাতেখড়ি এই শিল্পীর। তারপর বাউল রাজ্জাক দেওয়ান ও শেষে আবদুর রশীদ সরকারের কাছে গান শেখেন। দুই দশকের বেশি সময়ের সংগীতজীবনে ৭০০টির বেশি একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে তার। বাংলাদেশের একজন সংসদ সদস্যও তিনি।এছাড়া পরিবেশনায় অংশ নেবে ব্যান্ড ‘স্বরব্যাঞ্জো’। ২০১৪ সালে রাজশাহীতে যাত্রা শুরু এই দলটির। গান-বাজনা (২০১৫) এবং হাওয়ার চিঠি (২০১৬) নামে দুটি অ্যালবাম প্রকাশ করেছে তাদের। এদিনের অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে থাকবে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যান্ড ‘লস টেক্সম্যানিয়াকস’। ২০১০ সালে সংগীতের সবচেয়ে বড় পুরস্কার গ্র্যামি ঘরে তুলেছে দলটি।এদিন আরও থাকবে বাহরাইনের ব্যান্ড ‘মাজাজ’। ২০১৩ সালে তাদের যাত্রা শুরু। ২০১৬ সালে মুক্তি পায় তাদের প্রথম অ্যালবাম। ভারতের ‘দ্য রঘু দীক্ষিত প্রজেক্ট’ থাকবে দ্বিতীয় দিনের পরিবেশনায়। ভারতের লোকসংগীত ঘরানার জনপ্রিয় নাম দ্য রঘু দীক্ষিত প্রজেক্ট। ২০০৫ সালে তাদের পথচলা শুরু।সমাপনী দিনের আয়োজনলোকসংগীত উৎসবের সমাপনী দিনে থাকবে বাউলশিল্পী কবির শাহ্’র পরিবেশনা। শাহ্ আবদুল করিমের কাছ থেকে তার গানের হাতেখড়ি। সমাপনী দিনের অন্যতম আকর্ষণ শায়ান চৌধুরী অর্ণব। গায়ক, গীতিকার, চিত্রশিল্পী শায়ান চৌধুরী অর্ণবের ছোটবেলা থেকেই সংগীতের সঙ্গে পরিচয়। অর্ণবের বাবা চিত্রশিল্পী স্বপন চৌধুরী এবং চাচা বাংলাদেশের প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী তপন চৌধুরী। ক্লাস সেভেনে পড়ার সময়েই অর্ণব হাতে তুলে নেন এসরাজ। শান্তিনিকেতন থেকে এমএফএ ডিগ্রি নিয়ে বাংলাদেশে গানের জগতে নিজস্ব একটি স্টাইল তৈরি করেছেন।সমাপনী দিনে পরিবেশনায় অংশ নেবে ‘নকশীকাঁথা’। এই দলটি ২০০৭ সালে  গানওয়ালা নামে যাত্রা শুরু করেছিল। তারপর ২০১১ সালে দলের নাম বদলে ‘নকশীকাঁথা’ হয়। এদিন আরও থাকবে পাকিস্তানি শিল্পী শাফকাত আমানত আলীর পরিবেশনা। ওস্তাদ আমানত আলী খান তার বাবা। সমাপনী দিনের পরিবেশনায় আরও থাকবে স্পেনের চার নারী সদস্যের ব্যান্ড ‘লা মিগাস’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here