শহিদ মিনারে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধায় সিক্ত নির্মাতা সাইদুল আনাম টুটুল

0
220

বরেণ্য নির্মাতা সাইদুল আনাম টুটুলকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। কেন্দ্রিয় শহিদ মিনারে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধায় সিক্ত হলেন এই নির্মাতা। সম্মিলিত সংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে আজ বৃহস্পতিবার (২০ ডিসেম্বর) সকাল ১১টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত শহিদ মিনারের পাদদেশে তার মরদেহ রাখা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন তার স্ত্রী ও দুই কন্যা।সাধারণ মানুষের পাশাপাশি এই নির্মাতাকে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন তার দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা। তাদের মধ্যে ছিলেন সৈয়দ হাসান ইমাম, মুস্তাফা মনোয়ার, নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, তারিক আনাম খান, গোলাম কুদ্দুস, মাসুম রেজা, কবি মুহম্মদ সামাদ, ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ডা. ইয়াসমিন হক, আফরোজা বানু, নির্মাতা এস এ হক অলীকসহ শিল্প-সংস্কৃতি অঙ্গনের অনেকে।গেলো মঙ্গলবার বিকাল ৩টা ১০ মিনিটে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন টুটুল। তিনি একাধারে  নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী ও চিত্র সম্পাদক।১৯৫০ সালের পহেলা এপ্রিল পুরোনো ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন সাইদুল আনাম টুটুল। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে তিনি ৬ নম্বর সেক্টরের অধীন খুলনা অঞ্চলে সরাসরি যুদ্ধে অংশ নেন। যুদ্ধ শেষে স্বাধীন বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন টুটুল। ১৯৭৪ সালে ভারত সরকারের বৃত্তি নিয়ে পুনে চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউটে চলচ্চিত্র সম্পাদনা বিষয়ে পড়তে যান।‘সূর্য দীঘল বাড়ি’ ছবিটির সম্পাদনার জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। তিনি একজন চলচ্চিত্র নির্মাতাই হতে চেয়েছিলেন। ‘আধিয়ার’ নামে একটি ছবিই পরিচালনা করেছেন তিনি। মৃত্যুর আগে তার দ্বিতীয় ছবি ‘কালবেলা’র শুটিং করছিলেন টুটুল। দুটি চলচ্চিত্রই সরকারি অনুদানের।সাইদুল আনাম টুটুল নির্মিত উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে আছে নাল পিরান, দায় মার সন্তানেরা, বখাটে, সেকু সেকান্দর, নিশিকাব্য, ৫২ গলির এক গলি, আপন পর, গোবর চোর, হেলিকপ্টার, মৃতের প্রত্যাবর্তন, অপরাজিতা। তার সম্পাদিত ছবির মধ্যে উল্লেখযোগ্য ঘুড্ডি, দহন, দীপু নাম্বার টু, দুখাই।  আরটিভি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here