শেরপুরের ফজলু গাজীপুর থেকে নিখোঁজ না অপহরণ!

0
213

নিখোঁজের প্রায় তিন মাস হলেও মো: ফজলু মিয়াকে (২৫) উদ্ধার করতে পারেনি জয়দেবপুর থানা পুলিশ। নিখোঁজের মা অজুফা বেগমের অভিযোগ- পুলিশ আসামী শাহিনুর ইসলাম (দিপুর) পক্ষ নিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানাযায়, নিখোঁজ ফজলু শেরপুর জেলার পাকুরিয়া গ্রামের সমিরউদ্দিনের ছেলে। মা অজুফা বেগম। অভিযোগ সূত্রে জানায়, গত ২৪মে ২০১৮ তারিখে রাত ১১টার দিকে ফজলুকে মামালার আসামী শাহিনুর ইসলাম (দিপু) তার ০১৬১১৩৯৫৭৮৮ মোবাইল নাম্বার থেকে ফজলুর- ০১৯৮৫৬৮৫০৮৭ নাম্বারে ফোন করে গাজীপুর বাইমাইল এলাকার কামরুজ্জামানের ভাড়াবাসা থেকে ফজলুকে ডেকে নিয়ে আসে । এর থেকে ফজলুকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না ।

ফজলুর মা ও বাবা পুলিশের সাথে এ বিষয়ে কথা বলতে গেলে, পুলিশ বলছে, ফজলু একাধিক মামলার আসামি হওয়ায় নিজেকে আত্নগোপন করেছে।

এদিকে অপহরণ ও গুমের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ফজলুর মা মোসা: অজুফা বেগম শাহিনুর ইসলাম (দিপু) সহ ৭ জনের বিরুদ্ধে গাজীপুর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মামলা দায়ের করেন। মামলা-সি. আর, মো:নং-১৮/২০১৮ এবং জয়দেবপুর থানায় একটি সাধারন ডায়েরী নং(২০৫৬)তাং ২৮/৫/১৮ইং ।

মামলায় অভিযুক্ত আসামিরা হলেন, গাজীপুর মহানগরীর বাইমাইল এলাকার মো: শফিকুল ইসলাম শফি (সাবেক মেম্বার) তার দুই ছেলে মো: শাহিনুর ইসলাম দিপু (২৭) মো: ঝিকু মিয়া (৩০) ও স্ত্রী মোছা: বছি বেগম (৫০) ছাড়াও অন্যরা হলেন, উজ্জল (৩০), মস্তফা (৩০), সাইফুল (৩৫)।

এ ব্যাপারে শাহিনুর ইসলাম দিপুর সাথে শেরপুর থেকে তার মা-বাবা ও আত্বীয়স্বজন যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, নিখোঁজ ফজলুর বাড়ি কোথায় আমি জানি না। সে আমার বাড়ির পাশে টিনসেট বাড়িতে থাকতো এবং বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজ করে বেড়াতো এবং আমার কারণে তাকে কেউ কিছু বলতে সাহস পেত না। আমি তাকে শেল্টার দিতাম।

পাশাপাশি সে আমার ইন্টানেট প্রতিষ্ঠানে কাজ করতো নানা ঝুটঝামেলা করে আসছিলো আমি তাকে নিরাপত্তা দিয়ে আসতাম। তবে মা অজুফা সরাসরি দিপুর বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে, দিপু অপহরণের কথা অস্বীকার করে বলেন, তার বাবা-মা ছেলেকে বেড় করে দেয়ার জন্য আমাকে চাপ দিয়েছিল।

ফজলুর মা অজুফা বেগম আরো অভিযোগ করেন, ২৪ মে বৃহস্পতিবার রাতে বাসার পাশে বাইমাইল সরকারি প্রাইমারি স্কুল মাঠে কাজ আছে বলে ফোন করে ডেকে নিয়ে যায় ফজলুকে। এরপর থেকে আমার ছেলে নিখোঁজ হয়।

এ ঘটনার কয়েক দিনপর দিপু নিজেকে বাঁচাতে আমাকে (অজুফা) জয়দেবপুর থানায় নিয়ে নিজেরে ইচ্ছেমত একটি সাধারণ ডাইরি লিখে স্বাক্ষর নিয়ে থানায় জমা দেয়। ওই রাত থেকে ফজলুর ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে।

এ ঘটনায় গাজীপুর বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগ দায়ের করা হয়। ঘটনার দুই মাসের অধিক হলেও ফজলুকে উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। ফজলুর বাবার অভিযোগ, ফজলুকে উদ্ধারের জন্য পুলিশকে বার বার তাগিদ দিলেও তারা কোন গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

এ বিষয়ে জয়দেবপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক মোবারক হোসেনের ফোনে ০১৭১৬৯৯০৬৫৫ যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমরা বিভিন্নভাবে চেষ্টা করছি ফজলুকে খুঁজে বের করতে। তবে সে একজন সন্ত্রাসী, চাদাবাজ ও ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত ছিল বলে জানান তিনি ।

বাবা সমির উদ্দিন, মা অজুফা বেগম বলেন আমার ছেলে শাহিনুর ইসলাম দিপুর ইন্টারনেট ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করতো এবং ফজলুকে সেখানে বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িয়েছে দিপু । ফজলুকে বিয়ে করানো হয় দিপুর সহায়তায় সেখানেই, এখন কি কারণে ফজলুকে অপহরন করে মেরে ফেলেছে না গুম করেছে দিপুই ভাল জানে। পুলিশ এখনো ফজলুর কোন খোঁজ পায়নি বলে, উল্টে অভিযোগ করেন আমার ছেলে সন্ত্রাসী, চাদাবাজ ছিল এবং ২মাসের বেশি হয় এখনো মামলা এফ আই/নথিযুক্ত করেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here