‘শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি সরকারি কারখানার শ্রমিকদের মজুরির সমান করতে হবে’

0
182

বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেছেন, সরকারি কারখানার শ্রমিকেরা ন্যূনতম ১৭ হাজার ৮শ ২০ টাকা মজুরি পাবে আর বেসরকারি কারখানার শ্রমিকেরা পাবে মাত্র ৮ হাজার টাকা তা হতে পারে না।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি আরও বলেন, সরকার ঘোষিত সরকারি কারখানার শ্রমিকদদের জন্য যে মজুরি ঘোষণা করা হয়েছে, ১৭ হাজার ৮শ ২০ টাকা। আর বেসরকারি শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ হলো ৮ হাজার টাকা। এটা একটা বিরাট বৈষম্য। আমাদের সংবিধানেও বলা আছে সকল প্রকার অসমতা, বৈষম্য দূর করার। ফলে সরকারি এবং বেসরকারি শ্রমিকদের মধ্যেকার মজুরি বৈষম্য সাংবিধানিক অঙ্গীকারের লঙ্ঘন।

মাত্র ৮ হাজার টাকায় একজন শ্রমিক পরিবারের পক্ষে যে ঢাকা শহরে বসবাস ও জীবনযাপন প্রায় অসম্ভব সেটি মনে করিয়ে দিয়ে বাসদ সাধারণ সম্পাদক বলেন, শ্রমিকরা শ্রম দেন তার মৌলিক চাহিদা মেটানোর জন্য। অন্ততপক্ষে খেয়ে-পড়ে বাঁচার চেষ্টা কঠোর শ্রম দেন তারা। অথচ সেই শ্রমের মর্যাদা আমরা এখনো নিশ্চিত করতে পারিনি। যে মজুরি একজন শ্রমিককে দেওয়া হয় তা দিয়ে ঢাকা শহরে একটি শ্রমিক পরিবার ঢাকা শহরে বসবাস ও জীবনযাপন সম্ভব নয় বর্তমান বাজার দরে। সরকার কি তা জানে না? নিশ্চয় জানে। কিন্তু জানলে হবে না, শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি সরকারি কারখানার শ্রমিকদের মজুরির সমান করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, সরকারি-বেসরকারি কারখানার শ্রমিকদের মধ্যে যে বেতন বৈষম্য রয়েছে তা দূর করে সরকারি কারখানার শ্রমিকদের জন্য ঘোষিত সম-মজুরি বেসরকারি কারখানার শ্রমিকদের জন্যও তা দেওয়ার দাবি আমরা জানাই। ন্যূনতম মজুরি আইন করে ঘোষণার দাবিও আমরা ইতোমধ্যে জানিয়েছি। অবিলম্বে যেন তা বাস্তবায়ন করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here