সরি বলতেই সমস্যা!

0
246

সাইফ – জেরিনের  তিন বছরের সম্পর্ক। দু’জনের বোঝাপড়া চমৎকার। কিছু্ বলার আগেই যেন অন্যজন বুঝে যায়, তার মনের কথা। কাজও করে ঠিক সেভাবেই। পছন্দ-অপছন্দ সব কিছুতেই মিল। কিন্তু বিপত্তি হয় কোনো অমিল হলেই।

একসঙ্গে পথ চলতে সম্পর্কে মান-অভিমান হবেই। কিন্তু সাইফের সমস্যা সে কিছুতেই সরি বলতে পারে না। যার ফলে কখনো জেরিনের অভিমান সপ্তাহ-পেরিয়ে যায়, যোগাযোগ শুরু হতে। এই মৌনতা অল্প সময়ের জন্য ভালো হলেও দীর্ঘ দিন যদি এটা চলতে থাকে, তবে বিপদ আছে। কারণ অন্য পক্ষ তখন নিজেকে গুরুত্বহীন ভাবতে পারেন। এতে করে সম্পর্ক হারাতে পারে তার রং-গুলো, আর ফিকে সম্পর্ক বেশি দিন টেকানোও তখন আরেক যুদ্ধ।

সাইফের মতো যারা সঙ্গীকে সরাসরি সরি বলতে অস্বস্তিতে থাকেন, তারা জেনে নিন, কীভাবে মান-ভাঙাবেন প্রিয় মানুষটির:

দায়িত্ব নিন

ঠিক আছে, সরি বলতে হবে না। সঙ্গীকে বলুন এই যে তোমার মন খারাপ হলো, আসলে এটা না বললেই পারতাম। আজকের ঝগড়ার পুরো দায়িত্বটাও নিন। এরপর এমন হবেনা, এটাও বলে দিন। এতেই কাজ হবে, সঙ্গী তো অপেক্ষাতেই ছিলেন, আপনার সঙ্গে মিলে যাওয়ার জন্য।

কথা বলুন

কিছু হলেই কথা বন্ধ! এটা কোনো সমস্যার সমাধান হতে পারে না। বরং পরিস্থিতি জটিল করে। যাই হোক কথা বলুন, দেখবেন একটা সময় রাগ কমে মন নরম হয়ে যাবে।

প্রশ্ন তো করাই যায়

প্রিয় মানুষটি কষ্ট পাচ্ছে, আবার কথা বলতেও আনইজি লাগছে? বেশতো প্রশ্ন করুন। এটা কোথায়, ওটা কোথায়, বাইরে থেকে কিছু আনতে হবে কিনা, প্রয়োজন না হলেও প্রশ্ন করুন। উত্তর পাওয়ার আশা করবেন না। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই স্বাভাবিক কথায় ফিরে আসতে এটা দারুণ টনিকের কাজ করবে।

উপহার

আগে বোঝার চেষ্টা করুন সঙ্গীর মন কেমন খারাপ, সেই অনুযায়ী এটা ছোট উপহার নিয়ে আসুন। যেমন যদি খুব ছোট কারণে মন খারাপ হয়, তবে তার পছন্দের চকলেট-আইসক্রিম বা ফুল, অপরাধ যদি আরেকটু বড় করে থাকেন, তাহলে সুন্দর একটা ড্রেস…

প্রিয় মানুষটিকে খুশি করতে মাঝে মাঝে সরি বলতে শিখুন। অভিমান ভুলে, থাকুন ভালোবাসার উষ্ণতায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here