সৌম্যর দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে উড়ে গেল জিম্বাবুয়ে

0
152

ব্যাটে-বলে দাপট দেখিয়ে জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে বিসিবি একাদশ। ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে সফরকারীদের দেয়া ১৭৯ রানে লক্ষ্য স্বাগতিকরা টপকে গেছে কেবল ২ উইকেট হারিয়েই। জাতীয় দলের বাইরে চলে যাওয়া সৌম্য সরকার খেলেছেন ১০২ রানের অপরাজিত ইনিংস।

সাভারের বিকেএসপিতে ৫০ ওভারের ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের কাজটা সহজ করে দেন টাইগার পেসাররা। বিশেষ করে ইবাদত ও সাইফউদ্দিন মিলে। নাগালে থাকা লক্ষ্য বিসিবি একাদশ টপকে যায় ৩৯ ওভারে। যেখানে হেড কোচ, স্পিন কোচ ও প্রধান নির্বাচকের সামনে ঝলমলে সেঞ্চুরি করে জাতীয় দলে ফেরার দাবির মঞ্চ বানান সৌম্য।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বিসিবি একাদশের শুরুটা ছিল নড়বড়ে। ঘরোয়া লিগে একের পর এক সেঞ্চুরি করে যাওয়া মিজানুর রহমান রানআউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান শুরুতেই। ৮ রান আসে এ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের থেকে।

ঘরোয়া লিগে পারফর্ম করে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দলে ডাক পাওয়া ফজলে রাব্বির ভুলেই ফিরতে হয় মিজানুরকে। মিজানুর সিঙ্গেল কল করলে ননস্ট্রাইকে থাকা ফজলে পা পিছলে পড়ে আগাতে পারেননি। অদ্ভুতভাবে রানআউট হন মিজানুর!

তিনে ব্যাট করা সৌম্য নেমে ১ রানে জীবন পান। উড়িয়ে মারতে গিয়ে ক্যাচ দেন মিডঅনের ফিল্ডারের হাতে। সে যাত্রায় বেঁচে গিয়ে আর ভুল করেননি এ বাঁহাতি। প্রস্তুতি ম্যাচের অধিনায়ক ২২ গজে সাবলীল খেলে এগিয়ে যান দুর্দান্ত সব শটের পসরা সাজিয়ে।

সৌম্যর সঙ্গে তাল মেলাতে পারেননি ফজলে রাব্বি। ধীরগতির ব্যাটিংয়ের পর অফস্পিনার সিকান্দার রাজার বলে মিডঅফে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফেরেন এ বাঁহাতি। ৩৪ বলে করেন ১৩ রান।

৫২ রানে ২ উইকেট হারানোর পর বড় জুটি গড়েন সৌম্য ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। জুটি একশ পাড়ি দেয়ার পর স্বেচ্ছা-অবসরে যান সৈকত। ৪৮ বলে করেন ৩৩ রান, ২ চারের সঙ্গে ছিল এক ছক্কার মার।

সৌম্য শেষঅবধি থাকেন। ম্যাচ জয়ে নোঙর করিয়েই মাঠ ছাড়েন। তুলে নেন দুর্দান্ত সেঞ্চুরিটি। তার অপরাজিত ১০২ রানের ইনিংস ১১৪ বলে সাজানো, যাতে ১৩ চারের সঙ্গে আছে একটি ছয়।

৫ উইকেট নেয়ার উল্লাস

আগে হ্যামিল্টন মাসাকাদজার ১০২ রানের ইনিংসের পরও দুইশ পার করতে পারেনি টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেয়া জিম্বাবুয়ে। একপ্রান্ত আগলে সেঞ্চুরি তুলে নেন সফরকারী দলের অধিনায়ক।

অন্যপ্রান্তে স্বাগতিক পেসার ইবাদত হোসেন ঝড় তুলে নেন ৫ উইকেট। পেসার হান্ট থেকে উঠে আসা ইবাদতের বোলিং তোপে ৪৫.২ ওভারের বেশি খেলতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। ৭ রানে শেষ ৫ উইকেট হারায় তারা।

মাসাকাদজার ১৩৮ বলে ১৪ চার এক ছক্কায় সাজানো ইনিংসটি থামে ইবাদতের বলে বোল্ড হয়ে ফিরলে।

৯ ওভারে মাত্র ১৯ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন ইবাদত। আরেক পেসার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন নিয়েছেন ৩ উইকেট। ইমরান আলী ও মোহর শেখ নিয়েছেন একটি করে উইকেট।

স্বাগতিক পেসারদের জ্বলে ওঠার দিনে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে জিম্বাবুয়ে। ৪৭ রানে তারা হারায় ৫ উইকেট। সেখান থেকে দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মাসাকাদজা ও এলটন চিগুম্বুরা ১২৪ রানের জুটি গড়ে চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহের সম্ভাবনা জাগান।

সেঞ্চুরি করে মাশরাফীদের বার্তা দিয়ে রাখলেন মাসাকাদজা

৪৭ করে চিগুম্বুরা সাউফউদ্দিনের বলে বোল্ড হলে ভাঙে জুটি। পরে ইবাদত এক ওভারে তিন উইকেট তুলে নিলে লেজ বেরিয়ে পড়ে জিম্বাবুয়ের। তখন ৪ বলের ব্যবধানে ৩ উইকেট নেন ইবাদত।

আর ডোনাল্ড ত্রিপানোকে বোল্ড করে জিম্বাবুয়ের ইনিংসে শেষ পেরেকটি ঢোকান সাউফউদ্দিন।

আগামী রোববার মিরপুরে শুরু হবে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। শেষের দুই ওয়ানডে হবে চট্টগ্রামে। ঢাকায় নেমেই সিরিজে দারুণকিছু করার কথা জানানো হয় সফরকারী দলের দিক থেকে। কিন্তু মাশরাফী-মুশফিকের সঙ্গে আসল লড়াইয়ে নামার আগে বিসিবি একাদশের কাছেই আত্মসমর্পণ করল জিম্বাবুয়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here