স্পট নেই প্রকা‌শ্যে বি‌ক্রিও নেই , নাম বদ‌লে চল‌ছে ইয়াবার ব্যাবসা

0
478

ইসমাঈল হুসাইন ইমু: স্পট নেই, প্রকাশ্যে বিক্রিও নেই। তবে দাম বেড়েছে। বিক্রি হচ্ছে মুঠোফোনে। মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্প, চকবাজারের ইসলামবাগ, লালবাগের শহীদ নগর, বংশালের আগামাসি লেন, কমলাপুরের টিকাটুলী বস্তি, শাহআলীর ঝিলপাড় বস্তিসহ রাজধানীর বেশকিছু আগের মাদক স্পট ঘুরে ইয়াবা বিক্রির এমন তথ্য জানা গেছে।

কয়েকটি মাদক স্পটের পুরনো বিক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এখন আর আগের মতো বিক্রি নেই। বিক্রেতাদের অনেকেই পেশা বদলে ফেলেছে। অনেকেই পান দোকানসহ ছোটখাটো ব্যবসায় নেমেছেন। তবে একটি গ্রুপ এখনো সক্রিয় রয়েছে। তারা জানান, এর আগে একটি ইয়াবা বড়ি আড়াইশ থেকে ৩শ’ টাকায় বিক্রি হতো। এখন ৫শ’ থেকে ১৫শ’ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয় একপিস ইয়াবা বড়ি। পাশাপাশি গাঁজার দামও বেড়েছে। আগে ১০ টাকায় যে পরিমাণ গাঁজা পাওয়া যেত তা এখন ১শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে মুঠোফোনে অন্য নামে বিক্রি হচ্ছে ইয়াবা। সম্প্রতি রাজধানীতে একটি ইয়াবা চক্র ধরা পড়ার পর এমন তথ্য বেরিয়ে এসেছে। অভিযানে অংশ নেয়া এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, মাদক বিক্রেতারা এখন ইয়াবার নাম দিয়েছে ইট, আর গাঁজার নাম মাটি। এক গাড়ি মাটি লাগবে অথবা এক গাড়ি ইট। এমন শব্দ প্রয়োগ করে মুঠোফোনে বিক্রি করা হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে জানতে পেরেছে পুলিশ।
এদিকে দীর্ঘদিন ধরে যারা ইয়াবায় আসক্ত তারা ইয়াবা না পেয়ে মদের বারের দিকে ঝুঁকছেন। প্রতিদিন বিকেল থেকে শুরু করে মধ্যরাত পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন বারে উঠতি বয়সী তরুণ ও যুবকদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

রাজধানীর একাধিক বার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত ২/৩ মাস থেকে বারে নতুন ক্রেতা বেড়েছে। আর এসব ক্রেতার মধ্যে বেশিরভাগই যুবক। এদের মধ্যে অনেকেই মদ খাওয়ার পারমিটও করে নিয়েছেন।

ফার্মগেটের সালামার বারের ম্যানেজার হারুন বলেন, যে হারে ইয়াবায় আসক্ত হয়ে পড়েছিল তরুণ সমাজ তাতে আগামী প্রজন্মের জন্য দুঃসংবাদ বয়ে আনতো। অভিযানের কারণে কিছুটা হলেও ইয়াবা ছেড়েছে কিশোর ও তরুণরা। তাদের অনেকে বারে আসে। এটা এক প্রকার ইতিবাচক বলে মনে করেন তারা।

বাংলা মোটরের শ্যালে, ইস্কাটনের গোল্ডেন ড্রাগন, মগবাজারের পিয়াসী, মহাখালীর হোটেল জাকারিয়া, রুচিতা, ব্লুমুন, কাকরাইলের নাইটিংগেল, রাজমনি ঈসা খাঁ, ঢাকা কলেজের সামনে গ্যালাক্সি, ফার্মগেটে রেডবাটন, সালামার, শুক্রাবাদের অ্যারাম, শাহবাগে শাকুরা, পিকক, গুলিস্তানের পূর্বাশাসহ রাজধানীর বারগুলোতে সন্ধ্যার পর থেকেই নতুন নতুন মুখ ঢুকছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সূত্রাপুর সার্কেলের পরিদর্শক হেলাল উদ্দিন বলেন, ইয়াবা ছেড়ে মদের দিকে ঝোঁকা কখনোই ভাল হতে পারে না। তরুণ-যুবকদের অভিভাবকদের এক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে। ধর্মীয় নির্দেশনা মেনে চললেই সমাজে শান্তি ফিরে আসতে পারে। তিনি বলেন, শুধু আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নয় সমাজের সকলকেই এই মরণ নেশার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। তাহলেই তরুণ সমাজকে রক্ষা করা যাবে বলে মনে করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here