সৎ মেয়েকে রাজনীতিতে আনলেন ইমরান খান

0
266

শফিকুর রহমানঃ স্ত্রী বুশরা মানিকার আগের সংসারের মেয়ে মেহেরুন্নিসা হায়াত আনুষ্ঠাকিভাবে যোগ দিয়েছেন পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পার্টিতে। সোমবার ইমরানের সঙ্গে বৈঠকের পর মেহেরুন্নিসা পার্টিতে যোগ দেন।

সোমবার তেহরিক-ই ইনসাফের পার্লামেন্ট সদস্যরা দলের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য ইমরানকে মনোনীত করেছেন। এ বিষয়ক এক বৈঠকের পর ইমরানের সাথে বৈঠক করেন মেহেরুন্নিসা হায়াত। বৈঠকের পর দলটিতে যোগ দেন মেহেরুন্নিসা। পিটিআই প্রধান ইমরানের সঙ্গে বৈঠকের সময় মেহেরুন্নিসার মা ও ইমরানের স্ত্রী বুশরা উপস্থিত ছিলেন।

গত ফেব্রুয়ারিতে লাহোরে ইমরান বিয়ে করেন বুশরাকে। ইমরানের সাথে বিয়ের পর বুশরা জনসমক্ষে আসেননি এবং রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকায় দেখা যায়নি।

গত ২৫ জুলাই পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে জয়লাভ করে ইমরানের দল পিটিআই। ১৪ আগস্ট পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন তিনি। ইতিমধ্যে সরকার গঠনের জন্য মিত্রদের সমর্থন নিয়ে প্রয়োজনীয় ১৩৭ আসন নিশ্চিত করেছেন তিনি।

মাঠে তিনি ছিলেন সর্বজনপ্রিয় নেতা। শুধু পাকিস্তান নয়, সমগ্র ক্রিকেট বিশ্বেই অধিনায়ক হিসেবে ইমরান খান ছিলেন তার সময়ের সেরাদের একজন। পারফরম্যান্স আর দলের মধ্যে অপূর্ব সমন্বয়ের কারণেই তার হাত ধরে পাকিস্তান পেয়েছিলো বিশ্বকাপ শিরোপা।

ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে রাজনীতির মাঠে এসেও পেয়েছেন সফলতা। সোমবার পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ দলের পার্লামেন্ট সদস্যরা আনুষ্ঠাকিভাবে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য মনোনীত করেছেন ইমরান খানকে। ইমরানের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের দীর্ঘ ২২ বছরের লড়াই সফলতার মুখ দেখতে যাচ্ছে এর মধ্য দিয়ে। ১৯৯৬ সালে রাজনীতিতে এসেছিলেন তিনি।আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পদার্পণের ২১ বছরের মাথায় ইমরান খানের হাতে উঠেছিলো বিশ্বকাপ শিরোপা(১৯৯২)। রাজনীতির মাঠে অবশ্য তার চেয়ে একটু বেশি সময় লাগলো রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায়ে যাওয়ার সুযোগ পেতে। খেলার মাঠে নিজের নেতৃত্ব আর সতীর্থদের সমর্থনে সাফল্য পেয়েছেন, আর রাজনীতির মাঠে তাকে সমর্থন দিয়েছেন পাকিস্তানের সাধারণ জনগন।

প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য দলের মনোনয়ন পাওয়ার পরই ইমরান খান দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, তার দলের সরকারের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ, এসব চ্যালেঞ্জে উৎরে যেতে না পারলে জনগন অন্য দলগুলোর মতোই পিটিআইকে প্রত্যাখান করবে। ইমরান বলেছেন, প্রথাগত উপায়ে দেশ শাসন না করে ‘দৃষ্টান্তমূলক নেতৃত্ব’ দিতে চান দেশকে। দলের নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘জনগন আর গৎবাঁধা শাসন পদ্ধতি চায় না, তারা পরিবর্তন চায়।

আমাদেরকে তারা ভিন্ন সরকার হিসেবে দেখে। আমরা যদি অন্যদের মতো সেই একই রাজনীতি করি, অন্যদের মতোই জনগনের ক্রোধের শিকার হতে হবে’।
ইমরান খান বলেন, তার দেশ শাসনের পদ্ধতি হবে মেধা ও জাতীয় স্বার্থের ভিত্তিতে। ‘আমি সিদ্ধান্ত নেব মেধা আর জাতীয় স্বার্থের ওপর ভিত্তি করে। নিজে যা করবো না তেমন কিছু করতে কাউকে নির্দেশও দেব না’।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনয়ন পাওয়ার পর ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিতে আসা ইমরান খান বলেন, ‘আজ সবচেয়ে বড় দায়িত্বটি আমার ওপর চাপানো হলো। দীর্ঘ ২২ বছরের সংগ্রাম সফলতার প্রথম ধাপ অতিক্রম করলো আজ। আল্লাহ আজ নৈতিক বিজয় দান করেছেন’।

ইমরান বলেন, ‘১৯৭০ সালের পর প্রথমবারের মতো জনগন রাজনৈতিক এলিটদের প্রত্যাখান করেছে। দুই দলীয় শাসন ব্যবস্থার মধ্যে তৃতীয় একটি দল গড়ে ওঠা খুবই বিরল ঘটনা।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here