হাসপাতালেই কাটবে অভিনেত্রী নওশাবার ঈদ

0
258

সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের অধীনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসা চলতে থাকা অভিনেত্রী নওশাবার ঈদুল আজহা কাটবে হাসপাতালেই।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে গড়ে উঠা শিক্ষার্থী আন্দোলনের সময় ফেসবুক লাইভ দিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে র‌্যাব গ্রেপ্তার করেছিল অভিনেত্রী নওশাবাকে। এরপর তাকে ডিবিতে হস্তান্তর করে রিমান্ডে নেয়া হয়। অসুস্থ্যতাবোধের পর ১৩ আগস্ট রাত সোয়া ১০টার দিকে তাকে ঢামেকে ভর্তি করা হয়।

নওশাবার মেডিকেল বোর্ডের প্রধান ঢামেক নিউরো সার্জারি বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক সফিকুল ইসলাম। এ বোর্ডে আছেন- এ বিভাগেরই চেয়ারম্যান অধ্যাপক অসিত চন্দ্র সরকার, ঢামেকের অর্থ্রােপেডিক্স বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শামসুজ্জামান শাহীন।

সফিকুল ইসলাম ও অসিত চন্দ্র সরকারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে সাড়া পাওয়া যায়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এ বোর্ডের একজন সদস্য সোমবার এ প্রতিবেদককে বলেন, অর্থ্রোপেডিক্স, ফিজিক্যাল মেডিসিন, মেডিসিন, নিউরো সার্জারির চিকিৎসকদের সমন্বয়ে এ বোর্ড গঠন করা হলেও গাইনি, মানসিকসহ আরও কিছু বিষয়ের চিকিৎসকও দেখানো হচ্ছে নওশাবাকে। মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসক ও বোর্ডের বাইরের চিকিৎসকরাও তাকে বেশকিছু পরীক্ষা নীরিক্ষার পরামর্শ দিয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে বর্তমানে যে পদ্ধতিতে চিকিৎসা চলছে, তাতে করে ঈদুল আজহার সময়ও তাকে হাসপাতালে ভর্তি থাকতে হবে।

একটি প্রশ্নে এই বোর্ড সদস্য বলেন, নওশাবা শারিরীকভাবে যতটা অসুস্থ্য, মানসিকভাবে এর চেয়েও বেশি অসুস্থ। তিনি বিষণ্নতায় ভুগছেন।

গত শনিবার বোর্ড গঠনের পর সদস্যরা খুব ভালভাবে নওশাবাকে পর্যবেক্ষণ করেন। তলপেটে ব্যথা ও হাঁটতে অসুবিধার কারণে তার মূত্র পরীক্ষার পরামর্শ দিয়েছে বোর্ড। এছাড়া ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগে নিয়মিত থেরাপি গ্রহণ, ভাল ঘুমের জন্য কিছু ঘুমের ওষুধ সেবনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, এই পরিস্থিতিতে পড়ে নওশাবার মানসিক অবস্থায় নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। যা তার চেহারা, চলন-বলনে দৃশ্যমান। এজন্য তাকে মানসিক চিকিৎসক দেখানোর পরামর্শও দিয়েছে বোর্ড।

১৩ আগস্ট রাত সোয়া ১০টার দিকে তাকে ঢামেকে ভর্তির পর চিকিৎসকদের পরামর্শে একটি বেসরকারি হাসপাতালে এমআরআই করা হয় তার। এই পরীক্ষার রিপোর্টে নওশাবার স্পাইনে কিছু সমস্যা দেখা গেছে। এখানে বেশ আগে অপারেশন করা হয়েছিল বিদেশে।

অধ্যাপক অসিত চন্দ্র সরকার শনিবার বলেছিলেন, এমআরআই রিপোর্টে যা এসেছে তা গুরুতর নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here