২৩ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু, করোনা ভাইরাসের কারণে হজে যেতে না পারলে টাকা ফেরত, জানালেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

0
93

 রোববার দুপুরে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে করোানার প্রভাব প্রক্রিয়া ও ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মলনে এ কথা জানান তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সৌদি সরকার ২০১৯ সালের সুষ্ঠু ও সফল হজ্ব ব্যবস্থাপনায় সন্তুষ্ট হয়ে শুধুমাত্র বাংলাদেশের কোটা বৃদ্ধি করেছে । গত বছর অর্ধেক হজ্বযাত্রীর প্রি এরাইভাল আরবের প্রি এরাইভাল ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করা হয়েছে । যা এবছর শতভাগ ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে ।

শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, এ বছর এক লক্ষ ২০ হাজার জন সহ সর্বমোট ১ লক্ষ ৩৭ হাজার ১ শত ৯৮ জন বাংলাদেশি হজ্ব পালন করতে পারবেন। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৯ জিলহজ্জ , ১৪৪১ হিজরি মােতাবেক ৩০ জুলাই , ২০২০ খ্রি . এ বছরের পবিত্র হজ্ব অনুষ্ঠিত হবে। আর ১ জিলক্বদ , ১৪৪১ হিজরি , ২৩ জুন ২০২০ তারিখ হজ ফ্লাইট শুরু হবে। হজ্বযাত্রীদের সংখ্যানুপাতে বিমানের ফ্লাইট সিডিউল চূড়ান্ত করা হবে । হজ্ব ব্যবস্থাপনার জন্য সৌদি আরবে মুয়াল্লিম নিয়োগসহ আবাসনের জন্য বাড়ি/হেটেল ভাড়া করতে হবে । সৌদি আরবে হজ্ব ব্যবস্থাপনার জন্য বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের সব যোগাযোগ ও চুক্তি করতে হবে । সকল হজ্বযাত্রীর জন্য ভিসার ব্যবস্থা করতে হবে । এ সকল কাজ যথাসময়ে সম্পন্ন করার নিমিত্তে সরকার ঘোষিত সময় অনুযায়ী নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করা প্রয়োজন ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, হজ্বযাত্রী নিবন্ধনের উপর ভিত্তি করেই সকল কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে । এজন্য হজ ফ্লাইট শুরুর অন্তত ২ মাস পূর্বেই বিস্তারিত প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হয়। উপরোক্ত কার্যাবলী সম্পন্ন করতে কমপক্ষে ২ মাস সময়ের প্রয়োজন । প্রস্তুতিতে কোন ত্রুটি থাকলে হজ্বে গমন বিঘ্নিত হয়ে পড়তে পারে ।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, আপনারা ইতোমধ্যে ভালোভাবেই অবগত আছেন যে , করোনাভাইরাস এর প্রাদুর্ভাবের কারণে নিবন্ধনে বিলম্ব করলে হজযাত্রার সমস্যা হতে পারে ।

তিনি বলেন, হজ্বে গমনের পূর্বেই একজন হজ্বযাত্রীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা , টিকা গ্রহণ , হজ্বের প্রশিক্ষণ গ্রহণ , বিমানের টিকিট সংগ্ধ , কিমা প্রসেসসহ যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে হয় । এর প্রত্যেকটি কাজই সময় আবদ্ধ , নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ৪ কাজগুলো সম্পন্ন করতে না পারলে এক জন হজ্ব যাত্রীর হজ্বে গমন সম্ভব নয় । তাই ২০২০ সালের হজ্বযাত্রীদের প্রতি আমাদের অনুরোধ আপনারা নির্ধারিত সময়ে হজ্বের নিবন্ধন সম্পন্ন করে হজ্বের প্রস্তুতি গ্রহণ করুন যাতে এ বছরের হজ্বে গমনে কোন সমস্যা না হয়।

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত হজ পালনের লক্ষ্যে নিবন্ধন করা যাবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোতে সরকার নির্ধারিত টাকা জমা দিতে হবে। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here