২৪ ঘণ্টার মধ্যেই বর্জ্য অপসারণে তৎপর ২ সিটি

0
221

আগে থেকেই ঘোষণা ছিল ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজধানীর কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে। সেই অনুযায়ী দুপুর ২টা থেকে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ শুরু করেছে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

বুধবার (২২ আগস্ট) দুপুরে ধোলাইখাল সংলগ্ন কাউয়ারটেক পশুরহাটে কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণ কাজের উদ্বোধন করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।

অন্যদিকে একই সময়ে উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের ২ নম্বর ব্রিজের কাছে পশুরহাটের বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্যানেল মেয়র জামাল মোস্তফা।

উদ্বোধনের সময় মেয়রদের সঙ্গে দুই প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

কোরবানির বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম উদ্বোধনের সময় মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে।

এজন্য নগরবাসীর সহযোগিতা চেয়ে মেয়র বলেন, কোথাও কোনো ধরনের বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখলে আপনারা আমাদের নির্ধারিত কল সেন্টারে ফোন দেবেন।কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করছেন ডিএনসিসির প্যানেল মেয়র জামাল মোস্তফা। ছবি: বাংলানিউজতিনি বলেন, আমি নগরবাসীর কাছে আবেদন জানাতে চাই, আপনারা নির্ধারিত স্থানে কোরবানি করুন। কোরবানির পর পশুর রক্ত পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। আমরা ইতোমধ্যে ব্লিচিং ফাউডার আপনাদের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। সেই ব্লিচিং ফাউডার দিয়ে পশু জবাই দেওয়ার স্থান ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। আমরা করপোরেশন থেকে ব্যাগ সরবরাহ করেছি। কোরবানি পশুর বর্জ্য সেই ব্যাগে ভর্তি করে ময়লার কন্টেইনারে ফেলবেন। আপনাদের সচেতনতা এবং সার্বিক সহযোগিতার মধ্যে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণের মধ্যদিয়ে একটি পরিচ্ছন্ন নগরী ঢাকাবাসীকে উপহার দিতে চাই।

সাঈদ খোকন বলেন, কিছুক্ষণ আগে আমরা এ কার্যক্রম শুরু করেছি। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে উত্তর সিটি করপোরেশন এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কোরবানি পশুর বর্জ্য অপসারণ করে এই শহরের প্রিয় নগরবাসীকে একটি পরিচ্ছন্ন নগরী উপহার দেব।

তিনি বলেন, যদি আমাদের নির্ধারিত সময়ের মধ্যেও কারও বাসার আঙিনায় বা পড়া-মহল্লায় যদি কোরবানি পশুর বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা যায়, তাহলে আপনারা আমাদের কল সেন্টারে ফোন দেবেন। আমাদের নম্বর হচ্ছে ০৯৬১১০০০৯৯৯।

মেয়র বলেন, গতবছর আমরা প্রায় ২০ হাজার টন বর্জ্য অপসারণ করেছি। এবারও এ পরিমাণ বর্জ্য অপসারণ করার জন্য আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি রয়েছে। দুই সিটি করপোরেশন ঘোষিত সময়ের মধ্যে আমরা একটি পরিচ্ছন্ন নগরী উপহার দেব।

তিনি বলেন, পুরানো ঢাকায় দ্বিতীয় দিনও কোরবানি হয়। এ হিসেবে আমরা ধরে নেই ৯৫ শতাংশ বর্জ্য ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণ করে ফেলবো। বাকি ৫ শতাংশ বর্জ্য আমরা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণ করবো। তৃতীয় দিনের কোরবানির জন্যও আমরা প্রস্তুত থাকবো। যতক্ষণ না পর্যন্ত আমাদের শহর পরিচ্ছন্ন না হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের কার্যক্রম চলবে।
আমরা প্রায় ৬০২টির মতো নির্ধারিত স্থান করে দিয়েছি। পর্যাপ্ত ব্যবস্থাপনাও ছিল। কিন্তু এ পর্যন্ত আমরা সেভাবে নগরবাসীর সাহায্য পাইনি। আমরা তারপরও সম্মানিত নাগরিকদের অনুরোধ জানাচ্ছি, আমাদের ব্যবস্থাপনা রয়েছে, আপনার নির্ধারিত স্থানে পশু জবাই দিন।

কোরবানি পশুর অনেক বর্জ্য ড্রেন ও নর্দমায় ফেলা হয়। এ বর্জ্যগুলো বিষয়ে কী করা হবে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের বাজাবে মেয়র বলেন, আমাদের পর্যাপ্ত ইকুইপমেন্ট রয়েছে। যেসব স্থানে ড্রেন বা নর্দমায় বর্জ্য ফেলা হয়েছে সেগুলোও পরিষ্কার করা হবে।

অন্যদিকে প্যানেল মেয়র জামাল মোস্তফা বলেন, আমরা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সব বর্জ্য আপসারণ করবো। আমাদের কার্যক্রম সঠিক নিয়মেই হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here